শিল্পাঞ্চলে ন্যায্যমূল্যের দোকান স্থাপনের দাবি

চাল, ডাল, তেল, সবজিসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের দাম কমানো ও প্রতিটি শিল্পাঞ্চলে ন্যায্যমূল্যের দোকান স্থাপনের দাবি জানিয়েছে গার্মেন্টস শ্রমিক ফ্রন্ট।

আজ শুক্রবার (১৮ মার্চ) জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে আয়োজিত বিক্ষোভ সমাবেশ থেকে এ দাবি জানায় গার্মেন্টস শ্রমিক ফ্রন্ট।

আহসান হাবিব বুলবুলের সভাপতিত্বে সাধারণ সম্পাদক সেলিম মাহমুদের সঞ্চালনায় বিক্ষোভ সমাবেশে বক্তব্য রাখেন সমাজতান্ত্রিক শ্রমিক ফ্রন্টের সভাপতি রাজেকুজ্জামান রতন, গার্মেন্টস শ্রমিক ফ্রন্টের সহ-সভাপতি খালেকুজ্জামান লিপন, সাংগঠনিক সম্পাদক সৌমিত্র কুমার দাস, সহ-সম্পাদক খুরশিদ আলম মিথুন, অর্থ সম্পাদক সাই্ফুল ইসলাম শরিফ, নির্বাহী সদস্য রুহুল আমিন সোহাগ, আল আমিন হাওলাদার শ্রাবণ, মোহাম্মদ সোহেল, আনোয়ার খান, শুভ আচার্য প্রমুখ।

সমাবেশে বক্তারা বলেন, ২০১৮ সালের ডিসেম্বর থেকে গার্মেন্টস শ্রমিকদের বর্তমান মজুরি কাঠামো কার্যকর হয়েছে। সেসময় গার্মেন্টস শ্রমিক ফ্রন্টসহ পোষাক শ্রমিকরা সংবিধানের বৈষম্যহীন রাষ্ট্র আকাংখার চেতনা এবং ২০১৫ সালের পেকমিশনের ঘোষণার সাথে সামঞ্জস্য রেখে ন্যূনতম মজুরি ১৮ হাজার টাকা ঘোষণার দাবি করেছিল। 

তারা বলেন, শ্রমিকদের সেই দাবি পাশ কাটিয়ে মালিক প্রভাবিত মজুরি বোর্ড গার্মেন্টস শ্রমিকদের ন্যূনতম মজুরি মাত্র আট হাজার টাকা ঘোষণা করেছিল যা শ্রমিকদের পুষ্টি এবং জীবনমান রক্ষায় প্রয়োজনের তুলনায় ছিল অপ্রতুল। যার মূল মজুরি ছিল মাত্র ৪১০০ টাকা। 

বক্তারা আরও বলেন, বছর শেষে মজুরি বৃদ্ধি মুল মজুরির ৫ শতাংশ বা ২০৫ টাকা, তিন বছরে মাত্র ৬০০ টাকার কিছু বেশি। এই সময়ে চালের দাম বেড়েছে ৪৭ শতাংশ, ভোজ্য তেলের দাম বেড়েছে প্রায় ৯০ শতাংশ, মাছ, মাংশ, ডিম, সবজিসহ প্রায় প্রতিটি নিত্য পণ্যের দাম বেড়েছে।

তারা আরও বলেন, এই সময়ে পানি, বিদ্যুৎ ও গ্যাসের মত মৌলিক পণ্যের দাম বাড়ানো হয়েছে যথাক্রমে ৩৮, ২২ এবং ২৩ শতাংশ। পানির দাম ৪০ শতাংশ এবং গ্যাসের দাম ১১৫ শতাংশ বৃদ্ধি করার প্রস্তাব সরকারের সংশ্লিষ্ট দপ্তরে বিবেচনাধীন রয়েছে। যাতায়াতের বাস ভাড়া ২৭ শতাংশ বৃদ্ধির কথা বলা হলেও ন্যূনতম ভাড়া, সিটিং সার্ভিস, গেটলক সার্ভিস ইত্যাদি নামে বাস ভাড়া বাড়ানো হয়েছে ৮০ থেকে ১০০ শতাংশ। অর্থাৎ গার্মেন্টস শ্রমিকদের আর্থিক মজুরির মান প্রায় অর্ধেকে নেমেছে।

এসময় অবিলম্বে জাতীয় ন্যূনতম মজুরি ২০ হাজার টাকা ঘোষণা করা এবং অন্তবর্তী সময়ে শতভাগ মহার্ঘ্য ভাতা প্রদানের দাবি জানান নেতৃবৃন্দ। দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধির প্রতিবাদে বাম গণতান্ত্রিক জোট আহুত ২৮ মার্চ অর্ধদিবস হরতালের কর্মসূচির প্রতি সমর্থন ব্যক্ত করেন। নিত্যপণ্যের দাম কমানো, মহার্ঘ্য ভাতা, ন্যায্য মূল্যে খাদ্যপণ্য সরবরাহের দাবিকে জোরালো করতে আগামী ২৭ মার্চ পর্যন্ত শিল্পাঞ্চল সমূহে বিক্ষোভ- গণসংযোগের কর্মসূচি পালনের ঘোষণা দেন তারা।

Ad

মন্তব্য করুন

Epaper

সাপ্তাহিক সাম্প্রতিক দেশকাল ই-পেপার পড়তে ক্লিক করুন

Logo

ঠিকানা: ১০/২২ ইকবাল রোড, ব্লক এ, মোহাম্মদপুর, ঢাকা-১২০৭

© 2022 Shampratik Deshkal All Rights Reserved. Design & Developed By Root Soft Bangladesh

// //