নতুন অভিজ্ঞতার নিউজিল্যান্ড সফর

অম্লমধুর অভিজ্ঞতা দিয়ে শেষ হয়েছে বাংলাদেশ-ওয়েস্ট ইন্ডিজ সিরিজ। শুরুতে পূর্ণাঙ্গ সিরিজ খেলার কথা থাকলেও, পরে ছেঁটে ফেলা হয় টি-২০ ম্যাচগুলো।

ওয়ানডে সিরিজে হোয়াইটওয়াশ করার পর টেস্ট সিরিজে উল্টো ফল হয়। দুই ম্যাচেই অনেকটা খর্বশক্তির দলের বিপক্ষে পরাজয়ে নিজেদের টেস্ট সামর্থ্য নিয়েও এখন প্রশ্ন দেখা দিয়েছে।

চারদিকে যখন সমালোচনা তুঙ্গে, ঠিক সে সময়ই নিউজিল্যান্ড সফরে গেছেন তামিম ইকবাল ও মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের দল। কিউইদের বিপক্ষে আবার টেস্ট ম্যাচ নয়, খেলবে ওয়ানডে ও টি-২০। 

করোনা প্রাদুর্ভাব শুরু হওয়ার পর এই প্রথম কোনো দেশ সফরে যাচ্ছে বাংলাদেশ। সে কারণে অনেক নতুন অভিজ্ঞতার মুখোমুখি হতে হবে লাল সবুজ প্রতিনিধিদের। শুরুটা হবে কোয়ারেন্টিন দিয়ে। সব ধরনের নিয়ম মেনে তবেই মাঠে নামার সুযোগ পাবে। দুটি সিরিজই হবে তিন ম্যাচের। সন্তানসম্ভাবা স্ত্রীর পাশে থাকতেই এই সিরিজ থেকে নিজের নাম প্রত্যাহার করে নিয়েছেন সাকিব আল হাসান। 

এরপর চলতি বছরের জানুয়ারিতে দেশের মাটিতে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে সিরিজ দিয়ে আবারো আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ফিরেছে বাংলাদেশ দল। এশিয়ার দেশগুলোর জন্য সবসময়ই এই কন্ডিশনে খেলা বেশ কঠিন ব্যপার। সে হিসেবে নিউজিল্যান্ড সফরে কঠিন পরীক্ষা দিতে হবে বাংলাদেশ দলকে। ওখানে টাইগারদের সাফল্য নেই বললেই চলে, তবুও তামিম ইকবালরা ভালো খেলার প্রত্যাশা নিয়েই দেশটিতে উড়াল দিয়েছেন। 

তামিম আনুষ্ঠানিক ওয়ানডে অধিনায়ক হিসেবে ওয়েস্ট ইন্ডিজ সিরিজ দিয়ে যাত্রা শুরু করেছেন। তার নেতৃত্বে তিন ম্যাচের সিরিজটি ৩-০ তেই জিতে নিয়েছেন স্বাগতিকরা। জয়ের সেই ধারা ধরে রাখতে চাইবেন বাংলাদেশের ওয়ানডে অধিনায়ক। মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ টি-২০ অধিনায়ক। তিনি ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে টেস্ট সিরিজের দলে ছিলেন না, তবে ওয়ানডে সিরিজে খেলেছেন। করোনা মহামারির পর এবার তার নেতৃত্বে আন্তর্জাতিক টি-২০ তে খেলতে নামবে বাংলাদেশ। এই ফরম্যাটেও নিউজিল্যান্ডের মাটিতে সাফল্য নেই টাইগারদের।

বাংলাদেশ যা কিছু ভালো করছে সেটি ওয়ানডেতে। টেস্ট কিংবা টি-২০তে এখনো সমীহ করার মতো দলে পরিণত হতে পারেনি। সে কারণেই ক্রিকেট বোদ্ধাদের ধারণা, ওয়ানডে সিরিজের মতো তিন ম্যাচের টি-২০ সিরিজেও কঠিন পরীক্ষা অপেক্ষা করছে বাংলাদেশ দলের সামনে। করোনার কারণে কোয়ারেন্টিন ঝামেলা তো দলের জন্য রয়েছেই। তাছাড়া কন্ডিশনের সঙ্গে মানিয়ে নেয়ার ব্যাপারও থাকছে। এ কারণে আগেভাগে দেশছাড়তে হয়েছে দলকে। কোয়ারেন্টিন ঝামেলা মিটলেই নিউজিল্যান্ডের মাটিতে অনুশীলন করার সুযোগ পাবেন খেলোয়াড়রা। 

২০১৯ সালে সর্বশেষ নিউজিল্যান্ড সফরে গিয়েছিল বাংলাদেশ। ক্রাইস্টচার্চের হোটেল থেকে জুমআর নামাজ পড়তে যাওয়ার সময়ই মসজিদে সন্ত্রাসী হামলার শিকার হতে হতে বেঁচে গিয়েছিল দলের খেলোয়াড়রা। এরপর সফর সংক্ষিপ্ত করে দেশে ফিরে আসেন বাংলাদেশের খেলোয়াড়রা।

সে বিষয়টি তো মাথায় রয়েছে, তারপরও নিরাপত্তা নিয়ে এবার খুববেশি টেনশন করতে হবে না বলে নিশ্চয়তা দিয়েছে নিউজিল্যান্ড কর্তৃপক্ষ। তবে অনেক নতুন সমস্যার মুখোমুখি হতে হবে বাংলাদেশ দলকে। অনেকটা সেলফ সার্ভিস দিয়েই কোয়ারেন্টিনের সময়টা কাটাতে হবে। শুরুটা হবে দেশটির সেনাবাহিনীর বানানো ক্রাইস্টচার্চ সরকারি কোয়ারেন্টাইন সেন্টারে ১৪ দিন থাকার মাধ্যমে। শান্তির দেশ হিসেবে পরিচিত নিউজিল্যান্ড আইসোলেশন ও কোয়ারেন্টাইনের নিয়মে কোনো ছাড় দেয় না। বিশেষ করে যখন প্রতিবেশী দেশ অস্ট্রেলিয়ার খেলোয়াড়রা ১৪ দিনের সময় একান্তে কাটাতে হয়েছে, তখন বোঝাই যায় নিয়মের ব্যাপারে তারা জিরো টলারেন্স নীতি অবলম্বন করেছে। 

কোয়ারেন্টাইন সেন্টারে থাকার সময় পাঁচতারা হোটেলের বিলাসী জীবনযাপন করতে না পারার বিপরীতে উন্নত বিশ্বের নাগরিকদের মতো নিজের কাজ নিজেকেই করতে হবে ক্রিকেটারদের। এমনকি ঘরের শৌচাগার পরিষ্কার করতে হবে ক্রিকেটারদের! যেমন করে উন্নত বিশ্বের ভিআইপিকেও নিজের কাজ নিজেকেই করতে হয়।

মন্তব্য করুন

Epaper

সাপ্তাহিক সাম্প্রতিক দেশকাল ই-পেপার পড়তে ক্লিক করুন

Logo

ঠিকানা: ১০/২২ ইকবাল রোড, ব্লক এ, মোহাম্মদপুর, ঢাকা-১২০৭

© 2021 Shampratik Deshkal All Rights Reserved. Design & Developed By Root Soft Bangladesh