মামলার তদন্ত একতরফাভাবে হয়েছে : পরীমণি

চিত্রনায়িকা পরীমণিকে মারধর, হুমকি ও যৌন হয়রানির অভিযোগ দায়ের করা মামলা একতরফাভাবে তদন্ত হয়েছে। বিষয়টি আদালতকে জানিয়ে মামলাটি পুনরায় তদন্তের আবেদন করেছেন পরীমণি।

আজ বুধবার (১ ডিসেম্বর) ঢাকার নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-৯ এর বিচারক মোহাম্মদ হেমায়েত উদ্দিনের আদালতে মামলার অভিযোগপত্র গ্রহণের জন্য দিন ধার্য ছিল। 

কিন্তু আদালতে বাদী নারাজি (অভিযোগপত্র মানি না) দিয়েছেন। এ বিষয়ে আদেশ পরে দেবেন বলে আদালত জানিয়েছেন।

আজ সকাল ১০টার দিকে আদালতে উপস্থিত হন পরীমণি। নাসির উদ্দিন মাহমুদ, তুহিন সিদ্দিকী অমিও আদালতে উপস্থিত হন।

সকাল পৌনে ১১টায় মামলার শুনানি শুরু হয়। শুরুতে আসামিপক্ষের আইনজীবী কাওছার হোসেন বলেন, ‘মামলাটি চার্জশিট গ্রহণের জন্য আছে। আসামিরা আদালতে হাজির হয়েছেন। তারা জামিনে আছেন। যেহেতু মামলাটি ট্রাইব্যুনালে এসেছে তাই আবার তাদের পূর্বশর্তে জামিন প্রার্থনা করছি।’

তিনি বলেন, ‘বাদীপক্ষ এ মামলায় নারাজি দাখিল করবেন বলে শুনতেছি। নারাজি দাখিল করলে আমরা এ বিষয়ে পরে আবার বলবো।’

পরীমণির আইনজীবী নীলাঞ্জনা রিফাত সুরভী আসামিদের জামিন বাতিলের আবেদন করে কারণ হিসেবে বলেন, ‘আসামিরা বাদী, সাক্ষীদের ভয়ভীতি দেখাচ্ছেন। তারা বাইরে থাকলে মামলার বিচারে বিঘ্ন ঘটবে।  এজন্য তাদের জামিন বাতিলের আবেদন করছি।’

নারাজি দাখিলের বিষয়ে তিনি বলেন, ‘মামলার তদন্তে অনেক বিষয় মিসিং আছে। গুরুত্বপূর্ণ সাক্ষীদের চার্জশিটে অন্তর্ভুক্ত করা হয়নি। তাই আমরা মামলাটি পুনরায় তদন্তের আবেদন করছি।’

এরপর বিচারক নারাজির বিষয়ে পরীমণির জবানবন্দি গ্রহণ করেন। জবানবন্দিতে পরীমণি বলেন, এ মামলার ভিডিও ফুটেজ নাই। গুরুত্বপূর্ণ সাক্ষীদের চার্জশিটে রাখা হয়নি।  দুজন ম্যাজিস্ট্রেটকেও সাক্ষী থেকে বাদ দেওয়া হয়েছে।  যারা ভিডিওটি করেছে এবং ঘটনার সময় যারা ছিল তাদের সাক্ষী করা হয়নি। তারা কোথায়? মামলা একতরফাভাবে তদন্ত হয়েছে। এজন্য মামলাটি পুনরায় তদন্তের প্রয়োজন।

এরপর আসামিপক্ষের আইনজীবী বলেন, মামলাটি সঠিকভাবে তদন্ত হয়েছে। এখন আবার পুনরায় তদন্তের প্রয়োজন নেই।

উভয়পক্ষের শুনানি শেষে আদালত দুই আসামিকে পূর্বশর্তে জামিনের আদেশ দেন। আর নারাজির বিষয়ে পরে আদেশ দেবেন বলে জানান পরীমণির আইনজীবী নীলাঞ্জনা।

শুনানি শেষে আদালত থেকে বের হওয়ার সময় সাংবাদিকরা ছবি তুলতে গেলে পরীমণি বলেন, আমার ছবি না তুলে র‌্যাপিস্টদের ছবি তুলুন।

এর আগে ৬ সেপ্টেম্বর মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা কামাল হোসেন ঢাকার চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে এ অভিযোগপত্র জমা দেন। এরও আগে ১৪ জুন ধর্ষণ-হত্যাচেষ্টার অভিযোগে নাসির উদ্দিন ও তার বন্ধু অমির নাম উল্লেখ করে এবং চারজনকে অজ্ঞাত আসামি করে সাভার থানায় মামলা করেন পরীমণি। এরপর বিষয়টি নিয়ে তৎপর হয় পুলিশ।

মন্তব্য করুন

Epaper

সাপ্তাহিক সাম্প্রতিক দেশকাল ই-পেপার পড়তে ক্লিক করুন

Logo

ঠিকানা: ১০/২২ ইকবাল রোড, ব্লক এ, মোহাম্মদপুর, ঢাকা-১২০৭

© 2022 Shampratik Deshkal All Rights Reserved. Design & Developed By Root Soft Bangladesh

// //