প্রবল জোয়ারে বাঁধ ভেঙে বিস্তীর্ণ এলাকা প্লাবিত

ছবি: ইউএনবি

ছবি: ইউএনবি

অমাবস্যার কারণে সৃষ্ট প্রবল জোয়ার ও গত কয়েক দিনের টানা বৃষ্টির ফলে খুলনার উপকূলীয় উপজেলা কয়রা ও পাইকগাছার বিস্তীর্ণ এলাকা প্লাবিত হয়েছে।

গতকাল শুক্রবার (২১ আগস্ট) জোয়ারের পানিতে বাঁধ ভেঙে কয়রায় চারটি গ্রাম প্লাবিত হয়ে দুর্ভোগে পড়েছেন অন্তত ১০ হাজার মানুষ। কপোতাক্ষ আর কয়রা নদীর পানি বৃদ্ধি পেয়ে প্লাবিত হয়েছে ২নং কয়রা, গোবরা, ৩নং কয়রা ও বেদকাশি গ্রাম। এর আগে বুধবার উপজেলার কাজীপাড়া, পুটিহারী, হরিণখোলা, কাশিরহাট খোলা ও ঘাটাখালি প্লাবিত হয়।

কাজীপাড়ার সিরাজুল ইসলাম বলেন, আমফানের পর কোনোমতে ঘর মেরামত করে বসবাস শুরু করেছিলাম। কিন্তু জোয়ারের পানিতে ঘরবাড়ি ফের প্লাবিত হয়ে পড়েছে।

কয়রা উন্নয়ন সংগ্রাম সমন্বয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক ইমতিয়াজ উদ্দিন বলেন, হঠাৎ করে জোয়ারের অতিরিক্ত পানি বাঁধ উপচে বিভিন্ন গ্রামে প্রবেশ করেছে। এতে নতুন করে ভোগান্তি তৈরি হয়েছে। বৃহস্পতি ও শুক্রবার চারটি গ্রাম প্লাবিত হয়ে ২৫০০ পরিবার সংকটে পড়েছে। সাধারণ মানুষ স্বেচ্ছাশ্রমে বাঁধ আটকানোর কাজ শুরু করেছে।

কয়রা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান শফিকুল ইসলাম বলেন, জোয়ারের পানির চাপে ঘাটাখালী এবং ২ ও ৩ নং কয়রায় বাঁধ ভেঙে গেছে। কিছু জায়গায় বাঁধ ও পাকা সড়ক উপচে গ্রামে গ্রামে পানি প্রবেশ করছে।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা অনিমেষ বিশ্বাস বলেন, পানির চাপ কমে গেলে এসব স্থানে প্রয়োজনীয় মেরামত করা সম্ভব হবে। আর বিভিন্ন স্থানে স্বেচ্ছাশ্রমের কাজে বস্তা সরবরাহ করা হচ্ছে।

এদিকে পাইকগাছা উপজেলায় শিবসা নদীর পানির চাপে হাড়িয়ার বাঁধ ভেঙে বুধবার মাজরাবাদ, বয়ারঝাপা ও টেংরামারী গ্রাম প্লাবিত হয়। গত দুই দিনে অমাবস্যার প্রবল জোয়ারের পানির চাপে চারটি ইউনিয়নের সাতটি স্থানে ওয়াপদার বাঁধ ভেঙে ও উপচে বিস্তীর্ণ এলাকা প্লাবিত হয়েছে।

স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও পানি উন্নয়ন বোর্ডের উদ্যোগে সাময়িকভাবে বাঁধ মেরামত করা হলেও বেতবুনিয়ার আবাসন প্রকল্পের পাঁচ শতাধিক পরিবার পানির মধ্যে বসবাস করছে। জোয়ারের পানিতে উপজেলার সোলাদানা ইউনিয়নে বেতবুনিয়া আবাসন ও গুচ্ছগ্রাম পানিতে থৈ থৈ করছে। একই ইউনিয়নের টেংরামারী ও ভাঙা হাড়িয়ার ওয়াপদার বাঁধ ভেঙে পাঁচ হাজার বিঘা চিংড়ি ঘের প্লাবিত হয়ে ফসল ও মাছের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে।

এছাড়া দেলুটি ইউনিয়নের চকরি-বকরি বদ্ধ জলমহল ও গেওয়াবুনিয়ার ওয়াপদার বাঁধ উপচিয়ে জোয়ারের পানি এলাকায় প্রবেশ করেছে। স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান রিপন মন্ডল বলেন, দ্বীপ বেষ্টিত দেলুটি সব সময় প্রাকৃতিক দুর্যোগের শিকার। বুধবার গদাইপুরের কচুবুনিয়া ও লতার কাঠামারীর ওয়াপদার রাস্তা উপচে জোয়ারের পানিতে শত শত বিঘা চিংড়ি ঘের প্লাবিত হয়।

গ্রামবাসীদের সহায়তায় ভাঙা হাড়িয়ার ভাঙন মেরামত করা হয়েছে বলে জানান স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান এসএম এনামুল হক। -ইউএনবি

মন্তব্য করুন

Epaper

সাপ্তাহিক সাম্প্রতিক দেশকাল ই-পেপার পড়তে ক্লিক করুন

Logo

ঠিকানা: ১০/২২ ইকবাল রোড, ব্লক এ, মোহাম্মদপুর, ঢাকা-১২০৭

© 2021 Shampratik Deshkal All Rights Reserved. Design & Developed By Root Soft Bangladesh