রায়হানের শরীরে ১১৩টি আঘাতের চিহ্ন

রায়হান উদ্দিন

রায়হান উদ্দিন

সিলেটে বন্দরবাজার ফাঁড়িতে পুলিশ হেফাজতে মারা যাওয়া রায়হান উদ্দিনের প্রথম দফার ময়নাতদন্ত রিপোর্ট পিবিআইকে হস্তান্তর করেছে ওসমানী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের ফরেনসিক বিভাগ। 

রিপোর্টে রায়হানের শরীরে ১১৩টি আঘাতের চিহ্ন পাওয়া গেছে। লাঠির আঘাতের কারণে চামড়া ছিলে যাওয়ার ১৪টি জখম পাওয়া গেছে। তার দুটি আঙুলের নখ উপড়ে ফেলাসহ পুরো শরীরে শুধু লাঠির আঘাত রয়েছে ১১১টি। নির্যাতনের সময় রায়হানের পাকস্থলিও খালি ছিল। 

আজ রবিবার (১৮ অক্টোবর) ওসমানী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের ফরেনসিক বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ডা. শামসুল ইসলাম বিষয়টি নিম্চিত করেছেন। 

তিনি বলেন, প্রথম দফার ময়নাতদন্ত রিপোর্ট ১৫ অক্টোবর পিবিআইয়ের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। রিপোর্টে রায়হানের শরীরে ১১৩টি আঘাতের চিহ্ন পাওয়া গেছে। এরমধ্যে শরীরের রয়েছে ১১১টি ও হাতের দুটি নখ উপড়ানোসহ মোট ১১৩টি আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। 

তিনি আরো বরেন, আঘাতগুলো লাঠি দিয়েই করা হয়েছে। আর অতিরিক্ত আঘাতের কারণে শরীরের ভেতর রগ ফেটে গিয়ে অতিরিক্ত রক্তক্ষরণে মারা যান রায়হান। আঘাতে শরীরের মাংস থেঁতলে যায়। অতিরিক্ত আঘাতের কারণে রায়হানের হৃদযন্ত্র রক্ত পায়নি। সেজন্য তার মৃত্যু হয়। লাঠির আঘাতের কারণে হাইপোভলিউমিক শক ও নিউরোজেনিক শকে মস্তিষ্ক, হৃৎপিণ্ড, ফুসফুস, কিডনিসহ গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গগুলো কর্মক্ষমতা হারায়। আঘাত করার সময় রায়হানের পেট খালি ছিল। পেটে ছিল কেবল এসিডিটি লিকুইড।

ডা. শামসুল বলেন, পুলিশ রায়হানের লাশের সুরতহাল যেভাবে তৈরি করেছে আঘাতগুলো উল্লেখ করে সেইভাবে আমরাও পেয়েছি ময়নাতদন্তের সময়। তবে পুলিশ ম্যাজিস্ট্রেটের কাছে পুনরায় ময়নাতদন্তের আবেদন করায় লাশ তুলে আবার ময়নাতদন্ত করা হয়। শেষের ময়নাতদন্তে তেমন কিছু মিলবে না। কারণ লাশটি পঁচে গেছে। তবুও আমরা বিষয়টি দেখছি।

গত ১১ অক্টোবর ভোরে পুলিশ ফাঁড়িতে নির্যাতন করে ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়ার পর রায়হানের মৃত্যু হয়। এ ঘটনায় কোতোয়ালি থানায় হত্যা মামলা করেন নিহতের স্ত্রী তাহমিনা আক্তার তান্নি। 

এরপর বন্দরবাজার পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ এসআই আকবর হোসেন ভূঁইয়াসহ চার পুলিশ সদস্যকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়। একইসাথে তিন পুলিশ সদস্যকে প্রত্যাহার করা হয়। ঘটনার পর থেকে আকবর পলাতক রয়েছেন।

মন্তব্য করুন

Epaper

সাপ্তাহিক সাম্প্রতিক দেশকাল ই-পেপার পড়তে ক্লিক করুন

Logo

© 2020 Shampratik Deshkal All Rights Reserved. Design & Developed By Root Soft Bangladesh