কিশোরগঞ্জে আ.লীগ কার্যালয়ে ভাঙচুর-অগ্নিসংযোগ

হেফাজতে ইসলামের ডাকা হরতালে কিশোরগঞ্জে হামলা-ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগের ঘটনা ঘটেছে।

রবিবার (২৮ মার্চ) সকাল থেকে শহরের বিভিন্ন সড়কে অবস্থান নিয়ে ব্যাপক তাণ্ডব চালায় হেফাজতকর্মীরা।

একপর্যায়ে জেলা আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে ব্যাপক ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগ করে তারা। পরে পুলিশ টিয়ারশেল ও ফাঁকা গুলি ছুড়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। গোটা শহরে থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে। এ ঘটনায় অন্তত ২০ জন আহত হয়েছেন। এছাড়া বেশ কয়েকজনকে আটক করেছে পুলিশ।

এদিকে বেলা ১১টার দিকে শহরের যান চলাচল বন্ধ করে দেয় হরতালকারীরা। রাস্তার মোড়ে মোড়ে অবস্থান নিয়ে হরতাল সমর্থকরা ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগ চালায়। দুপুর ১২টার দিকে শত শত হরতাল সমর্থক লাঠিসোটা নিয়ে জেলা আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে হামলা চালায়। তারা আধ ঘণ্টাব্যাপী আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে তাণ্ডব চালায়। এ সময় চেয়ার-টেবিলসহ অন্যান্য আসবাবপত্রসহ ভাঙচুর করা হয়। তারা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছবিসহ জাতীয় নেতাদের ছবিতে অগ্নিসংযোগ করে।

পরে শহরের গৌরাঙ্গবাজার এলাকায় পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে হরতালকারীরা। পুলিশ ও আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের সাথে দফায় দফায় সংঘর্ষে এলাকা রণক্ষেত্রে পরিণত হয়। খবর পেয়ে পুলিশ সুপার ও জেলা প্রশাসকের নেতৃত্বে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী তাদের নিয়ন্ত্রণে টিয়ারগ্যাস ও ফাঁকা গুলি ছোড়ে।

কিশোরগঞ্জের পুলিশ সুপার মাশরুকুর রহমান খালেদ বলেন, ‘যেকোনো পরিস্থিতি পুলিশ কঠোর হাতে দমন করবে। বর্তমানে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। শহরে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।’

কিশোরগঞ্জের জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ শামীম আলম বলেন, ‘আওয়ামী লীগ অফিসে যারা হামলা করেছে তাদের চিহ্নিত করে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

মন্তব্য করুন

Epaper

সাপ্তাহিক সাম্প্রতিক দেশকাল ই-পেপার পড়তে ক্লিক করুন

Logo

ঠিকানা: ১০/২২ ইকবাল রোড, ব্লক এ, মোহাম্মদপুর, ঢাকা-১২০৭

© 2021 Shampratik Deshkal All Rights Reserved. Design & Developed By Root Soft Bangladesh