সৈকতে ভেসে এলো আড়াই টন ওজনের মৃত তিমি

কক্সবাজারের দরিয়ানগর সমুদ্র সৈকতে ভেসে এলো বিশাল আকৃতির একটি মৃত তিমি। ধারণা করা হচ্ছে এই তিমির ওজন হবে প্রায় দুই টন।

শুক্রবার (৯ এপ্রিল) দুপুর ১ টার দিকে সাগরের পানিতে মৃত অবস্থায় ভাসমান দেখে স্থানীয়রা। পরে স্থানীয়রা বনবিভাগ এবং পরিবেশ অধিদফতরে খবর দেন।

স্থানীয় বাসিন্দা নুর নবী জানান, লোকমুখে শুনে আমি সৈকতে গিয়ে দেখি মৃত তিমিটি পড়ে আছে। দুর্গন্ধও ছড়াচ্ছে। গায়ের রং লালচে হয়ে গেছে। সম্ভবত কয়েকদিন আগে তিমিটি মারা গেছে। তিমিটির পেছনের দিকের অংশে বড় ধরনের ক্ষত রয়েছে। ধারণা করা হচ্ছে, গভীর সাগরে মাছ ধরার জাহাজের সঙ্গে ধাক্কা লেগে তিমিটি মারা যেতে পারে। পরে ভাসতে ভাসতে সৈকতে এসেছে। 

পরিবেশবাদি সংগঠন সেভ দ্যা নেচার অব বাংলাদেশের চেয়ারম্যান মোয়াজ্জেম  হোসেন জানান, মৃত তিমিটির আঘাতের চিহ্ন এবং গন্ধে অনুমান করা যাচ্ছে অন্তত এক সপ্তাহ আগে তিমিটি মারা গেছে। সাগরে ফেলা কোন রাসায়নিক বর্জ্য খাওয়ার ফলে এ তিমির মৃত্যু হতে পারে। তাই এ মৃত তিমিটি মানুষের জন্যও ক্ষতিকর।

সরেজমিনে মেরিন ড্রাইভ সড়কে হিমছড়ি এলাকায় দেখা যায়, সৈকতে বালুর মধ্যে বিশাল মৃত তিমিটি পড়ে আছে। তিমির শরীরে আঘাতের চিহ্ন আছে। মুখের অংশ একেবারেই গলে গেছে। বিকেল সাড়ে ৫ টা পর্যন্ত তিমিটি উদ্ধারে কোনো তৎপরতা শুরু হয়নি। তবে তিমিটি দেখার জন্য উৎসুক মানুষের ভিড় জমেছে।

পরিবেশবাদি সংগঠন কক্সবাজার বন ও পরিবেশ সংরক্ষণ পরিষদের সভাপতি দীপক শর্মা বলেন, ১৯৯৬ ও ২০০৮ সালে পৃথক দুটি বিশাল তিমি এভাবে ভেসে এসেছিল। দীর্ঘদিন পর আবার বিশাল মৃত তিমি সৈকতে ভেসে এসেছে।

কক্সবাজারের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক মো. আমিন আল পারভেজ জানান, বন বিভাগ, পরিবেশ অধিদপ্তর, মৎস্য অধিদপ্তর সম্বনয়ে এটি কি করা যায় তা নিয়ে সিদ্ধান্ত হয়েছে। দ্রুত সময়ের মধ্যে মৃত্যুর কারণ নির্ধারণ করে এটি মাটিতে পুঁতে ফেলা হবে।

মন্তব্য করুন

Epaper

সাপ্তাহিক সাম্প্রতিক দেশকাল ই-পেপার পড়তে ক্লিক করুন

Logo

ঠিকানা: ১০/২২ ইকবাল রোড, ব্লক এ, মোহাম্মদপুর, ঢাকা-১২০৭

© 2021 Shampratik Deshkal All Rights Reserved. Design & Developed By Root Soft Bangladesh