আবু ত্ব-হা ও ২ সঙ্গীকে ছেড়ে দিয়েছে পুলিশ

আদালত থেকে বেরিয়ে আসছেন ত্ব-হা ও তার সঙ্গীরা। ছবি : সংগৃহীত

আদালত থেকে বেরিয়ে আসছেন ত্ব-হা ও তার সঙ্গীরা। ছবি : সংগৃহীত

নিখোঁজের পর উদ্ধার আলোচিত ধর্মীয় বক্তা আবু ত্ব-হা মুহাম্মদ আদনান ও তার দুই সঙ্গী রংপুর চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত থেকে ছাড়া পেয়েছেন। গতকাল শুক্রবার (১৮ জুন) রাত সাড়ে ১১টার দিকে ছাড়া পান তারা। এর আগে রাত সাড়ে ৯টার দিকে তাদের কেএম হাফিজুর রহমান জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে তোলা হয়। 

আদালতের নির্দেশের পর তাদের পরিবারের কাছে হস্তান্তর করেছে পুলিশ। রাত ১১টা ৪০ মিনিটের দিকে মেট্রোপলিটন গোয়েন্দা পুলিশের কড়া পাহারায় আদালত থেকে তাকে পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়।

রংপুর গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) উপ-কমিশনার আবু মারুফ হোসেন নিশ্চিত করেছেন।

এ বিষয়ে তিনি বলেন, আদালত তাদের কাছ থেকে নিখোঁজ থাকার বিষয়ে জানতে চেয়েছেন। সেসময় তারা আদালতের কাছে লিখিত স্টেটমেন্ট দিয়েছেন। পরে রাত সাড়ে ১১টার দিকে আদালত তাদেরকে নিজ নিজ জিম্মায় ছেড়ে দেয়ার নির্দেশ দেন। তাই আমরা তাদের ছেড়ে দিয়েছি।

ত্ব-হার মা ও মামা আমিনুল ইসলামের জিম্মায় তাকে হস্তান্তর করা হয়। আমিনুল এসময় বলেন, আদালত থেকে পরিবারের অভিভাবক হিসেবে আমাদের ডেকে পাঠানো হয়েছিল। আমি ও ত্ব-হার মা অভিভাবক হিসেবে এসেছি। আমাদের জিম্মায় তাকে হস্তান্তর করেছে পুলিশ।

এসময় তিনি প্রধানমন্ত্রী ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীসহ দেশবাসীর প্রতি কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করেন।

গত ১০ জুন দিবাগত রাত থেকে কোনো খোঁজ মিলছিল না আবু ত্ব-হা, তার দুই সঙ্গী আবু মুহিত আনছারী, মোহাম্মদ ফিরোজ ও গাড়িচালক আমির উদ্দিনের। সেদিন বিকেল ৪টার দিকে ওই তিনজনসহ আবু ত্ব-হা রংপুর থেকে ভাড়া করা একটি গাড়িতে ঢাকার পথে রওনা দেন। রাতে মোবাইল ফোনে সর্বশেষ কথা হলে তিনি সাভারে যাচ্ছেন বলে তার মাকে জানান।

রপর রাত ২টা ৩৬ মিনিটে প্রথম স্ত্রী হাবিবা নূরের সঙ্গে মোবাইল ফোনে কথা হয় আদনানের। তিনি সাভার যাচ্ছেন বলেই জানান স্ত্রীকে। তারপর থেকেই তার ফোন বন্ধ থাকায় আর যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি।

পরে সম্ভাব্য সব জায়গায় খোঁজাখুঁজি শেষে তাকে না পেয়ে ১১ জুন বিকেলে রংপুর কোতোয়ালি থানায় জিডি করেন ত্ব-হার মা আজেদা বেগম। তার খোঁজ চেয়ে ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে (ডিআরইউ) সংবাদ সম্মেলনও করেন দ্বিতীয় স্ত্রী সাবিকুন নাহার সারা।

পরে গতকাল দুপুর দেড়টার দিকে ত্ব-হার খোঁজ পেয়ে রংপুর কোতোয়ালি থানা পুলিশ তাকে হেফাজতে নেয়। পরে বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে তাদের ডিবি কার্যালয়ে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য নিয়ে যাওয়া হয়। এরপর রাতে তাদের আদালতে তোলা হয়।

মন্তব্য করুন

Epaper

সাপ্তাহিক সাম্প্রতিক দেশকাল ই-পেপার পড়তে ক্লিক করুন

Logo

ঠিকানা: ১০/২২ ইকবাল রোড, ব্লক এ, মোহাম্মদপুর, ঢাকা-১২০৭

© 2021 Shampratik Deshkal All Rights Reserved. Design & Developed By Root Soft Bangladesh

// //