ফুটবলার আঁখির বাবাকে হুমকি, ২ পুলিশ সদস্য ক্লোজড

সাফ নারী চ্যাম্পিয়নশিপ জয়ী নারী ফুটবল দলের সদস্য আঁখি খাতুনের বাবাকে থানায় ধরে নেওয়ার হুমকি ও শাসানোর অভিযোগে দুই পুলিশ সদস্যকে ক্লোজড করা হয়েছে।

আজ বৃহস্পতিবার (২২ সেপ্টেম্বর) দুপুরে সিরাজগঞ্জ পুলিশ সুপার মো. আরিফুর রহমান মন্ডল (বিপিএম-বার) এ নির্দেশ দেন। শাহজাদপুর থানার সহকারী উপ-পরিদর্শক (এএসআই) মামুনুর রশিদ ও কনস্টবল আবু মুসা।

পুলিশ সুপার আরিফুর রহমান মন্ডল (বিপিএম-বার) বিকেলে এ তথ্য নিশ্চিত করে জানান, নারী ফুটবলার আঁখির বাবার সাথে অসৌজন্যমূলক আচরণ করায় একজন এএসআই ও কনস্টেবলকে ক্লোজড করে পুলিশ লাইনে সংযুক্ত করা হয়েছে। ঘটনাটি তদন্তে সহকারী পুলিশ সুপারকে (শাহজাদপুর সার্কেল) নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

সম্প্রতি আঁখি খাতুনকে বরাদ্দ দেয়া খাস খতিয়ানভুক্ত ৮ শতাংশ জমির দখল নিয়ে আদালতে দায়ের করান হাজী মকরম প্রামাণিক নামে এক ব্যক্তি। ওই মামলায় আঁখিসহ ৫ জনকে বিবাদী করা হয়। বুধবার (২১ সেপ্টেম্বর) রাতে মামলার নোটিশ নিয়ে এএসআই মামুনুর রশিদ ও কনস্টেবল আবু মুসা তার গ্রামের বাড়ি শাহজাদপুরের পারকোলায় যান। এসময়  আঁখির বাবা আক্তার হোসেনকে নোটিশে স্বাক্ষর করতে বললে তিনি অস্বীকার করেন। এ নিয়ে উভয়ের মধ্যে বাকবিতণ্ডা হয়। এক পর্যায়ে আঁখির বাবাকে পুলিশ শাসায় এবং থানায় নিয়ে যাওয়ার হুমকি দেয়।

বিষয়টি জানাজানি হলে গণমাধ্যম ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে সমালোচনার ঝড় ওঠে। বৃহস্পতিবার সকালে সহকারি পুলিশ সুপার (শাহজাদপুর সার্কেল) আঁখির বাড়ি গিয়ে বিষয়টি নিয়ে কথা বলেন।

শাহজাদপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) বলেন, ফুটবলার আঁখির জন্য ১নং খাস খতিয়ানের একটি জমি বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। কিন্তু সম্প্রতি হাজী মকরম প্রামাণিক নামে এক ব্যক্তি ওই জমির তার দখলে রয়েছে দাবি করে মামলা দায়ের করেছেন। তবে মামলায় তিনি ওই জমির মালিকানা দাবি করেননি। মামলার তফসিলে খতিয়ানও উল্লেখ করেননি। প্রকৃতপক্ষে আঁখিকে দেয়া জমিটি ১নং খাস খতিয়ানভুক্ত। আঁখির পরিবার যাতে ওই জমি না পায়, সেজন্য একটি চক্র এই মামলা দায়ের করিয়েছে। 

তিনি বলেন, যেকোনো জমি নিয়ে মামলা হতেই পারে। মামলা দায়েরের পর প্রসিডিওর অনুযায়ী আইন শৃঙ্খলা রক্ষায় পক্ষদ্বয়কে নোটিশ দিতে সংশ্লিষ্ট থানাকে নির্দেশ দেয়া হয়। এখানে তেমনটাই ঘটেছে।

এর আগে দরিদ্র পরিবারে সন্তান আঁখি খাতুনকে সরকারীভাবে একটি জমি বরাদ্দ দেয়া হয়েছিল। সেই জমির মালিকানা দাবী করে শাহজাদপুরের একজন ব্যবসায়ী মামলা দায়ের করেন। পরবর্তীতে বিবাদমান এই জমির বরাদ্দ বাতিল করা হয়। পরবর্তীতে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে জেলা প্রশাসক ড. ফারুক আহম্মদ শাহজাদপুর পৌর এলাকার দ্বাবারিয়া মৌজায় খাস খতিয়ানভুক্ত ৮ শতক জমি বরাদ্দ দেন। সম্প্রতি আনুষ্ঠানিকভাবে আঁখির বাবা মায়ের হাতে ওই জমির দলিল হস্তান্তর করা হয়। 

সাম্প্রতিক দেশকাল ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন

Ad

মন্তব্য করুন

Epaper

সাপ্তাহিক সাম্প্রতিক দেশকাল ই-পেপার পড়তে ক্লিক করুন

Logo

ঠিকানা: ১০/২২ ইকবাল রোড, ব্লক এ, মোহাম্মদপুর, ঢাকা-১২০৭

© 2022 Shampratik Deshkal All Rights Reserved. Design & Developed By Root Soft Bangladesh

// //