কুষ্টিয়ায় কিশোর হত্যা মামলায় যুবকের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড

কুষ্টিয়ায় কিশোর গ্যাংয়ের ছুরিকাঘাতে এসএম ইমরান নাজির (১৬) নামে এক এসএসসি পরীক্ষার্থী নিহতের মামলায় ইমন ওরফে ঝুনু (২৪) নামের এক যুবকের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড ও অর্থদণ্ডাদেশ দিয়েছেন আদালত।

গতকাল বুধবার (২৪ জানুয়ারি) বিকেলে কুষ্টিয়া (জেলা ও দায়রা জজ) নারী ও শিশু নির্যাতন দমন বিশেষ আদালতের বিচারক সৈয়দ হাবিবুল ইসলাম আসামীর উপস্থিতিতে এই রায় ঘোষণা করেন।

সাজাপ্রাপ্ত ইমন ওরফে ঝুনু সদর উপজেলার জগতি গবরপাড়া গ্রামের বাসিন্দা সাহাদত হোসেনের ছেলে।

বিষয়টি নিশ্চিত করে শিশু আদালতে কর্তব্যরত রাষ্ট্রপক্ষের অতিরিক্ত কৌসুলি অ্যাডভোকেট কাজী সাইফুদ্দিন বাপ্পী জানান, সদর উপজেলার জগতি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ছাত্রীদের উত্যক্তের ঘটনার প্রতিবাদ করায় এবং বিষয়টি স্কুলের শিক্ষকদের বলে দেয়ার ঘটনার জেরে ২০১৫ সালের ২ মার্চ বিকেলে দণ্ডপ্রাপ্ত যুবক ইমন ওরফে ঝুনুর (১৬) নেতৃত্বে ইমন (১৬), আসফিম (১৬), আরসিল (১৬), শাকিল (১৬) ও সোহাগ (১৭) দলবদ্ধভাবে দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে নিহত ইমরানকে ঘিরে ধরে মারপিট ও ছুরিকাঘাত করে রক্তাক্ত জখম করে ফেলে রেখে পালিয়ে যায়।

এ ঘটনায় নিহত স্কুল ছাত্র ইমরানের পিতা সদর উপজেলার জগতি ৩নং কলোনির বাসিন্দা মৃত কাশেদ আলীর ছেলে হিটু সেখ বাদী হয়ে ৩ মার্চ, ২০১৫ কুষ্টিয়া মডেল থানায় কিশোর গ্যাংয়ের নেতা ইমন ওরফে ঝুনুসহ ছয়জনের নামোল্লেখ করে অজ্ঞাত আরো ৩/৪ জনের বিরুদ্ধে হত্যা মামলা দায়ের করেন। 

মামলাটি তদন্ত শেষে ২০১৬ সালের ১৪ জানুয়ারি কুষ্টিয়া মডেল থানার উপ পুলিশ পরিদর্শক মো. ওবাইদুর রহমান ছয়জনের বিরুদ্ধে হত্যাকাণ্ডে জড়িত অভিযোগ এনে আদালতে চার্জশিট দাখিল করেন।

বিশেষ শিশু আদালতে কর্তব্যরত রাষ্ট্রপক্ষের অতিরিক্ত কৌসুলি অ্যাডভোকেট সাইফুদ্দিন বাপ্পী আরো জানান, স্কুল ছাত্রীদের ইভ টিজিং বা যৌন হয়রানির ঘটানোর বিষয়টি স্কুলের শিক্ষকদের বলে দেওয়ার জের ধরে নিহত ইমরানের উপর ক্ষুব্ধ হয়ে এই হত্যাকাণ্ড ঘটেছিল। ঘটনার সময় এজাহার নামীয় সকলেই কিশোর বয়সী হওয়ায় তাদের বিচার কার্যক্রম শিশু আদালতে সম্পন্ন হয়েছে। এই মামলায় সাক্ষ্য শুনানি শেষে ইমন ওরফে ঝুনুর বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ সন্দেহাতীত প্রমাণিত হওয়ায় এবং ঘটনার সময় তার বয়স বিবেচনায় শিশু আদালতের সর্বোচ্চ শাস্তি ১০ বছরের কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। এছাড়া চার্জশিট ভুক্ত অন্য ৫ আসামির বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়ায় তাদের বেকসুর খালাস দিয়েছেন আদালত।

সাম্প্রতিক দেশকাল ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন

মন্তব্য করুন

Epaper

সাপ্তাহিক সাম্প্রতিক দেশকাল ই-পেপার পড়তে ক্লিক করুন

Logo

ঠিকানা: ১০/২২ ইকবাল রোড, ব্লক এ, মোহাম্মদপুর, ঢাকা-১২০৭

© 2024 Shampratik Deshkal All Rights Reserved. Design & Developed By Root Soft Bangladesh

// //