বিপৎসীমার ওপরে পিরোজপুরের নদীর পানি, অসংখ্য গ্রাম প্লাবিত

উপকূলীয় জেলা পিরোজপুরে সব নদ-নদীর পানি বাড়তে শুরু করেছে প্রবল ঘূর্ণিঝড় রেমালের প্রভাবে। আজ রবিবার (২৬ মে) দুপুরে জোয়ারের কারণে নদীর পানি বাড়ায় তীরবর্তী বিভিন্ন নিম্নাঞ্চল ও লোকালয়ে পানি ঢুকে পরেছে। 

জোয়ারের পানিতে জেলার পিরোজপুর সদরের কিছু অংশ, ইন্দুরকানী, মঠবাড়িয়া, ভান্ডারিয়া, স্বরূপকাঠি ও কাউখালিসহ নিম্মঞ্চল প্লাবিত হয়েছে। এছাড়া উঁচু এলাকাগুলোও জোয়ারের পানিতে তলিয়ে গেছে। তবে এখনো ক্ষতির কোনো খবর পাওয়া যায়নি।

পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবো) জানিয়েছে, জেলার নদ-নদীর পানি সর্বোচ্চ তিন ফুট পর্যন্ত বৃদ্ধি পেয়েছে। তবে ঘূর্ণিঝড় শুরুর আগেই দুপুরের অতি জোয়ারে জেলার সদর, ইন্দুরকানী, মঠবাড়িয়া, স্বরুপকাঠী ও কাউখালী উপজেলার নদীতীরবর্তী অসংখ্য গ্রাম প্লাবিত হয়েছে।

ইন্দুরকানীর গাবগাছিয়া এলাকার কৃষক মো.শহিদুল ইসলাম বলেন, কচা নদীর জোয়ারের পানি উপচে লোকালয়ে ঘরবাড়িতে ঢুকে পড়েছে। ফসলের ব্যাপক ক্ষতি হচ্ছে। কোনো কাজ করতে পারছি না। কষ্টে দিনযাপন করছি।

স্বরূপকাঠি এলাকার বাসিন্দা সুমাইয়া আকতার জানান, পানি বন্দী হয়ে পড়েছে অনেক মানুষ। ঘূর্ণিঝড় হলে আরও ব্যাপক ক্ষতি হতে পারে। 

এ বিষয়ে পাউবোর পিরোজপুর নির্বাহী প্রকৌশলী নুসাইর হোসেন বলেন, ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে পিরোজপুরের প্রধান নদ-নদীর পানি দুপুরে বিপৎসীমার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছিল। সবচেয়ে বেশি পানি বেড়েছে সন্ধ্যা ও কচা নদে। নদে দুপুরে বিপৎসীমার তিন ফুট ওপর দিয়ে পানি প্রবাহিত হয়েছে। বলেশ্বর ও ভৈরব নদে বিপৎসীমার দুই থেকে তিন ফুট ওপর দিয়ে পানি প্রবাহিত হচ্ছে।

সাম্প্রতিক দেশকাল ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন

মন্তব্য করুন

Epaper

সাপ্তাহিক সাম্প্রতিক দেশকাল ই-পেপার পড়তে ক্লিক করুন

Logo

ঠিকানা: ১০/২২ ইকবাল রোড, ব্লক এ, মোহাম্মদপুর, ঢাকা-১২০৭

© 2024 Shampratik Deshkal All Rights Reserved. Design & Developed By Root Soft Bangladesh

// //