ঘূর্ণিঝড় রেমালের প্রভাব ঝিনাইদহে

ঘূর্ণিঝড় রেমালের প্রভাবে ঝিনাইদহে স্বাভাবিক জীবনযাত্রা ব্যাহত হচ্ছে। গতকাল রবিবার (২৬ মে) বিকেল থেকে থেমে থেমে বৃষ্টি হলেও রাত বাড়ার সাথে সাথে ঝড় শুরু হয় পুরো জেলা জুড়ে। 

জানাযায়, বৃষ্টির প্রভাবে খেটে খাওয়া মানুষের জীবনযাত্রা ব্যাপকভাবে ব্যাহত হচ্ছে। রিকশা-ভান চালকরা পড়েছে বিপাকে। রাস্তায় মানুষ শূণ্য। জরুরি কাজ ছাড়া মানুষ ঘর থেকে খুব একটা বের হচ্ছে না। স্কুল কলেজে ছাত্র-ছাত্রীর উপস্থিতির হার বলতে গেলে শূণ্যের কোঠায়। তবে সকালে বৃষ্টি উপক্ষা করে অফিসমুখী মানুষ বাধ্য হয়েই ঘর থেকে বের হয়। তবে দূর পাল্লার সব বাস সঠিক সময়ে চলছে বলে জানায় টার্মিনাল থেকে।

ঝিনাইদহের প্রধান প্রধান মোড় যেমন পায়রা চত্বর, মুজিব চত্বর, আরাপপুর মোড়, হামদহ মোড় ঘুরে দেখা যায় সাধারণ মানুষের পদচারণা নেই বলেলেও চলে। বড় বড় বিপনী ও শপিং মল এবং দোকান ছাড়া, ছোটখাটো দোকান গুলো বন্ধ। আর যারা খুলেছেন তারা দোকানেই অলস সময় কাটাচ্ছেন।

রিকশাচালক সবেদ আলী জানান, কোনো যাত্রী নেই। রিকশা নিয়ে বের হয়ে ভুল করেছি।

তবে ঝিনাইদহ কোন আবহাওয়া অফিস না থাকায় কি পরিমাণ বৃষ্টি হয়েছে তা জানা সম্ভব হয়নি।

এ বিষয়ে ঝিনাইদহের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) রথীন্দ্র নাথ রায় বলেন, আমরা সম্পূর্ণ প্রস্তুত রয়েছি যে কোন অবস্থার জন্য। তবে এখনও কোন ধরনের খারাপ খবর পাওয়া যায়নি। ৬ উপজেলায় আলাদা আলাদা মিটিং হয়েছে। শুকনো খাবারসহ ইউনিয়নের সরকারি স্কুলে আশ্রয়কেন্দ্র প্রস্তুত রাখা হয়েছে।

তিনি আরো জানান, থেমে থেমে বৃষ্টি হচ্ছে। মানুষকে নিরাপদে থাকার জন্য মেসেজ প্রদান করা হয়েছে। প্রয়োজন ছাড়া ঘর থেকে যেন কেউ বের না হয়। উপজেলা পর্যায়ে সবসময় যোগাযোগ রক্ষা করে চলা হচ্ছে।

সাম্প্রতিক দেশকাল ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন

মন্তব্য করুন

Epaper

সাপ্তাহিক সাম্প্রতিক দেশকাল ই-পেপার পড়তে ক্লিক করুন

Logo

ঠিকানা: ১০/২২ ইকবাল রোড, ব্লক এ, মোহাম্মদপুর, ঢাকা-১২০৭

© 2024 Shampratik Deshkal All Rights Reserved. Design & Developed By Root Soft Bangladesh

// //