ক্ষুব্ধ শিক্ষকরা

এবার নীতিমালার গ্যাঁড়াকলে এমপিওভুক্তি

নীতিমালায় নানা অসঙ্গতির কারণে ফের আটকে গেছে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের এমপিওভুক্তির কার্যক্রম। শিক্ষা মন্ত্রণালয় চূড়ান্ত প্রতিষ্ঠানের তালিকা অনুমোদনের জন্য শীর্ষ নীতিনির্ধারক পর্যায়ে পাঠানোর পর তা দফায় দফায় ফেরত আসছে এবং সংশোধন হচ্ছে। কতোগুলো স্কুল, কলেজ, মাদ্রাসা ও কারিগরি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এমপিও পাবে তা নিয়েও টানাপড়েন আছে।
তাই বহুল আলোচিত এমপিওভুক্তির তালিকার প্রজ্ঞাপন সহসা জারি হচ্ছে না বলে জানিয়েছেন শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা।
শিক্ষা মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা যায়, এমপিওভুক্ত প্রতিষ্ঠানের তালিকা এখনো ঘষামাজা চলছে। তালিকায় কতগুলো স্কুল, কলেজ, মাদ্রাসা এবং কারিগরি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান স্থান পাবে তা নিয়ে টানাপোড়েন চলছে। তবে প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ের সঙ্গে প্রতিনিয়ত এ বিষয়ে সমন্বয় করা হচ্ছে। প্রতিষ্ঠানের এমপিও দেয়ার আগে ওইসব প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে যুক্ত ব্যক্তিদের রাজনৈতিক পরিচয় সামনে আনা হচ্ছে। এতে এমপিওভুক্তির কার্যক্রম লম্বা প্রক্রিয়ার মধ্যে পড়ে গেছে। তা এ সরকারের শেষ পর্যায় পর্যন্ত যেতে পারে বলে মনে করেন তারা। 
অন্যদিকে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্তির জন্য যেসব শর্ত রয়েছে, তাতেই বড় ধরনের অসঙ্গতি ধরা পড়েছে। এতে সংক্ষুদ্ধ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলো মন্ত্রণালয়ের দ্বারস্থ হচ্ছেন। তারা অসঙ্গতি দূর করার জন্য মন্ত্রণালয়ে আবেদন করেছেন। মন্ত্রণালয় তা গ্রহণ করে যাচাই-বাছাই শুরু করেছে। এতে প্রায় চূড়ান্ত হওয়া শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের এমপিওর ঘোষণা নিয়ে শঙ্কায় পড়েছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়।
এ ব্যাপারে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের অতিরিক্ত সচিব ও এমপিও বাচাই কমিটির প্রধান জাবেদ আহমেদ বলেন, 'নীতিমালায় কিছু টাইপিং ভুল এবং অসঙ্গতি আছে সেগুলো নিয়ে কাজ চলছে। এগুলো যাচাই-বাছাই চলছে। তিনি বলেন, স্নাতক পর্যায়ে আলাদা কোনো জনবল কাঠামো না থাকায় শিক্ষার্থীর মতো পরীক্ষার্থীর ক্যাটাগরিতে স্নাতকের জন্য আলাদা পরীক্ষার্থী নির্ধারণ করা যায়নি। তবে যেসব প্রতিষ্ঠান শুধু স্নাতক পর্যায়ে এমপিওভুক্তির জন্য আবেদন করছেন, তারা কেবল স্নাতকের শিক্ষার্থীর সংখ্যাটাই দিয়েছেন বলে তিনি জানেন এবং সে আলোকেই গ্রেডিং করা হয়েছে।' এতে কেউ ক্ষতিগ্রস্ত হবে না বলেও দাবি করেন তিনি।


মন্তব্য করুন

সাম্প্রতিক দেশকাল ই-পেপার

© 2020 Shampratik Deshkal All Rights Reserved. Design & Developed By Root Soft Bangladesh