শতভাগ উৎসব ভাতা ও এমপিওভুক্ত শিক্ষা জাতীয়করণ চান ৬ এমপি

জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান জি এম কাদের, কাজী ফিরোজ রশিদ, এম এ মতিন, আ ক ম সারওয়ার জাহান বাদশাহ, ডা. রুস্তম আলী ফরাজী ও রওশন আরা মান্নান। ফাইল ছবি

জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান জি এম কাদের, কাজী ফিরোজ রশিদ, এম এ মতিন, আ ক ম সারওয়ার জাহান বাদশাহ, ডা. রুস্তম আলী ফরাজী ও রওশন আরা মান্নান। ফাইল ছবি

নতুন ২০২১-২০২২ অর্থবছরের বাজেট অধিবেশনে এমপিওভুক্ত শিক্ষকদের আসন্ন ঈদুল আজহা থেকে শতভাগ উৎসব ভাতা প্রদান ও এমপিওভুক্ত শিক্ষা জাতীয়করণের দাবি জানিয়েছেন জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান ও সংসদের বিরোধীদলীয় উপনেতা জি এম কাদেরসহ অর্ধডজন এমপি। 

বাকি পাঁচ এমপি হলেন- কাজী ফিরোজ রশিদ, এম এ মতিন, আ ক ম সারওয়ার জাহান বাদশাহ, ডা. রুস্তম আলী ফরাজী ও রওশন আরা মান্নান।

সংসদ অধিবেশনে জি এম কাদের বলেন, এমপিওভুক্ত শিক্ষকদের সরকারি শিক্ষকদের মতো উৎসব ভাতা, বাড়ি ভাড়া ও চিকিৎসা ভাতাসহ অন্যান্য সুযোগ-সুবিধা দেয়া হয় না। এটি পরীক্ষা করে বিবেচনার করার জন্য আমি অনুরোধ করছি।

কাজী ফিরোজ রশিদ বলেন, শিক্ষকরা দুরবস্থার মধ্যে আছেন। তারা বাইরে পড়াতে পারছেন না। তাদের আয়-রোজগার বন্ধ হয়ে় গেছে। তারা ২৫ শতাংশ বোনাস পান। করোনাকালে তাদের জন্য শতভাগ বোনাসের ব্যবস্থা করা গেলে তারা ভালো অবস্থায় থাকবেন।

শতভাগ উৎসব ভাতা প্রদান ও এমপিওভুক্ত শিক্ষা জাতীয়করণের দাবি জানিয়ে ফিরোজ রশিদ বলেন, শিক্ষা জাতির মেরুদণ্ড, শিক্ষা জাতীয়করণ করলে দেশ ও জাতি উপকৃত হবে।

এম এ মতিন তার বক্তৃতায় ২৫ শতাংশ বোনাস বৃদ্ধির দাবি জানান। আ ক ম সরোয়ার জাহান বাদশাহ শিক্ষাব্যবস্থা জাতীয়করণের দাবি জানিয়ে বলেন, শেখ হাসিনার এই বাংলাদেশে এবং ছয় লাখ কোটি টাকারও বেশি বাজেটে শিক্ষায় কোনো বৈষম্য থাকতে পারে না। এমপিওভুক্ত শিক্ষাব্যবস্থা জাতীয়করণের দাবি জানিয়ে বক্তব্য রাখেন ডা. রুস্তম আলী ফরাজী ও রওশন আরা মান্নানও।

এ ব্যাপারে যোগাযোগ করা হলে শতভাগ উৎসব ভাতা বাস্তবায়ন কমিটির আহবায়ক ও বাংলাদেশ শিক্ষক সমিতির মহাসচিব জসিম উদ্দিন আহমদ বলেন, এমপিওভুক্ত শিক্ষকদের ১৩ সংগঠনের জোট শতভাগ উৎসব ভাতা বাস্তবায়ন কমিটি শতভাগ উৎসব ভাতা প্রদান ও এমপিওভুক্ত শিক্ষা জাতীয়করণের বিষয়টি সংসদে উত্থাপনের জন্য ইতোমধ্যে প্রায় অর্ধশতাধিক এমপি-মন্ত্রীকে স্মারকলিপি দিয়েছে। এরই ফলে অর্ধডজন এমপি বিষয়টি সংসদে উত্থাপন করেছেন।

তিনি এমপিদের ধন্যবাদ জানিয়ে আসন্ন ঈদুল আজহা থেকে শতভাগ উৎসব ভাতা প্রদানের লক্ষ্যে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে সরকারকে অনুরোধ জানান।

কমিটির সদস্য সচিব ও বাংলাদেশ মাদরাসা শিক্ষক কর্মচারী ফোরামের (বামাশিকফো) সভাপতি উপাধ্যক্ষ দেলাওয়ার হোসেন আজিজ বলেন, একজন এমপিওভুক্ত এন্ট্রি লেভেলের মাধ্যমিক শিক্ষক ২৫ শতাংশ উৎসব ভাতা হিসেবে পান ৩১২৫ টাকা মাত্র। মাদরাসার ইবতেদায়ি শিক্ষকদের উৎসব ভাতা আরও কম। এই সামান্য উৎসব ভাতা দিয়ে কোনো অবস্থাতেই উৎসব উদযাপন করা সম্ভব নয়।

তিনি বলেন, শতভাগ উৎসব ভাতা থেকে বঞ্চিত করার প্রতিবাদ হিসেবে পরিবারের সঙ্গে ঈদ উদযাপনের আনন্দ বিসর্জন দিয়ে গত ঈদুল ফিতরের নামাজ আমরা জাতীয় প্রেসক্লাবে আদায় করে মানববন্ধন করেছি। ২৬ মে জাতীয় প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করেছি এবং ব্যাপক তৎপরতা চালিয়েছি। এ কারণেই বাংলাদেশের ইতিহাসে এই প্রথম শিক্ষকদের যৌক্তিক দাবি-দাওয়া নিয়ে সংসদে ব্যাপক আলোচনা হয়েছে।

আলোচক এমপিদের ধন্যবাদ জানিয়ে তিনি মুজিব জন্মশতবর্ষ ও স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীর উপহার হিসেবে আসন্ন ঈদুল আজহা থেকে এমপিওভুক্ত শিক্ষকদের শতভাগ উৎসব ভাতা দিতে দ্রুত প্রজ্ঞাপন জারির জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে প্রধানমন্ত্রী, অর্থমন্ত্রী ও শিক্ষামন্ত্রীসহ সংশ্লিষ্টদের অনুরোধ জানান।

মন্তব্য করুন

Epaper

সাপ্তাহিক সাম্প্রতিক দেশকাল ই-পেপার পড়তে ক্লিক করুন

Logo

ঠিকানা: ১০/২২ ইকবাল রোড, ব্লক এ, মোহাম্মদপুর, ঢাকা-১২০৭

© 2021 Shampratik Deshkal All Rights Reserved. Design & Developed By Root Soft Bangladesh

// //