তফসিলের পর যেসব ক্ষমতা পাচ্ছে ইসি

প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কাজী হাবিবুল আউয়াল আজ জাতির উদ্দেশে ভাষণ দেবেন। সন্ধ্যা ৭টায়  তিনি তফসিল ঘোষণা করবেন। নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার পর থেকে কমিশনের হাতে কী ধরনের ক্ষমতা থাকে? সেই ক্ষমতা তারা কতটুকু প্রয়োগ করতে পারে?

বাংলাদেশে নির্বাচন কমিশন সাংবিধানিক একটি প্রতিষ্ঠান হলেও কমিশন কতটা স্বাধীন সেটি নিয়ে সবসময় বিতর্ক দেখা যায়। বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলো সবসময় অভিযোগ করে যে নির্বাচন কমিশন সরকারের ‘আজ্ঞাবহ’ থাকে। অর্থাৎ সরকারে সেভাবে চায়, নির্বাচন কমিশনও অতীতে সেভাবেই কাজ করেছে বলে তারা মনে করেন। যদিও ক্ষমতাসীন সরকার সবসময় নির্বাচন কমিশন স্বাধীন বলে দাবি করে। নির্বাচনের সময় এ নিয়ে বিতর্ক বেশ জোরালো হয়।

নির্বাচন কমিশন এটি সাংবিধানিক প্রতিষ্ঠান। সংবিধান এবং আইনের মাধ্যমে নির্বাচন কমিশনকে কিছু ক্ষমতা দেয়া হয়েছে। তবে বিশ্লেষকরা বলছেন, অতীতে বিভিন্ন সময় দেখা গেছে নির্বাচন কমিশন এমন কোন পদক্ষেপ নেয়নি যাতে ক্ষমতাসীনরা অসন্তুষ্ট হতে পারে। কয়েকটি ক্ষেত্রে অবশ্য ব্যতিক্রম ঘটেছে।

বাংলাদেশের সংবিধানের ১২৬ অনুচ্ছেদে বলা আছে- নির্বাচন কমিশনের দায়িত্বপালনে সহায়তা করা সকল নির্বাহী কর্তৃপক্ষের কর্তব্য। পর্যবেক্ষকরা, বলছেন এর মাধ্যমে নির্বাচন কমিশনের ক্ষমতা নিশ্চত করা আছে। নির্বাচন সংক্রান্ত আইন এবং নির্বাচন কমিশনের ক্ষমতা স্পস্ট ও বিস্তারিত উল্লেখ করা হয়েছে গণপ্রতিনিধিত্ব আদেশের মাধ্যমে।

কর্মকর্তা বদলি
তফসিল ঘোষণার পর আইন অনুযায়ী নির্বাচন কমিশন চাইলে প্রশাসনের মধ্যে রদবদল আনতে পারেন। গণপ্রতিনিধিত্ব আদেশে বলা হয়েছে, নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার পর থেকে বিভাগীয় কমিশনার, মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার, জেলা প্রশাসক, পুলিশ সুপার এবং তাদের অধস্তন কর্মকর্তাদের নির্বাচন কমিশনের সাথে আলোচনা ছাড়া বদলি করা যাবে না।

অন্যদিকে নিরপেক্ষ নির্বাচনের স্বার্থে কোন কর্মকর্তা বা কর্মচারীকে বদলি করার প্রয়োজন হলে করলে নির্বাচন কমিশন লিখিতভাবে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে জানাবে। এরপর যত দ্রুত সম্ভব সে বদলি কার্যকর করতে হবে।

প্রার্থিতা বাতিল
পর্যবেক্ষকরা বলছেন, যদি কোন প্রার্থী নির্বাচনী আইন ও আচরণ বিধির গুরুতর লঙ্ঘণ করেন, সেক্ষেত্রে প্রার্থিতা বাতিল করতে পারে নির্বাচন কমিশন। এ বিষয়টিতে নির্বাচন কমিশনের পুরোপরি এখতিয়ার আছে। তবে নির্বাচনী আচরণ বিধি লঙ্ঘনের দায়ে জরিমানা ও সতর্ক করার নজির থাকলেও প্রার্থিতা বাতিলের বিষয়টি দেখা যায় না।

রিটার্নি অফিসারকে নিয়ন্ত্রণ করা
বাংলাদেশে সংসদ নির্বাচনের ক্ষেত্রে জেলা প্রশাসকরা রিটার্নিং অফিসার হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। গণপ্রতিনিধিত্ব আদেশে উল্লেখ করা আছে, একজন রিটার্নিং অফিসারকে নির্বাচন কমিশন যেভাবে দায়িত্ব দেবে, তিনি সে দায়িত্ব পালন করতে বাধ্য থাকবেন।

ফলাফল বাতিল
গত ১৯ মে গণপ্রতিনিত্ব আদেশের সংশোধনী অনুমোদন করেছে মন্ত্রিসভা। বিষয়টি নিয়ে কয়েকটি সংবাদমাধ্যমে খবর বের হয়েছিল- ‘নির্বাচনের পরে ফলাফল বাতিল করতে পারবে না কমিশন’। এতে নির্বাচন কমিশনের ‘ক্ষমতা খর্ব হয়েছে’ বলে বেশ কিছু সংবাদমাধ্যমে উল্লেখ করা হয়।

তখন নির্বাচন কমিশনের সচিব গণমাধ্যমকে জানিয়েছিলেন যে নির্বাচনী কার্যক্রম ও ভোট চলাকালে নির্বাচন বাতিলের ক্ষমতা কমিশনের হাতে আছে। যে সংশোধনী যুক্ত করা হয়েছে সেটি হচ্ছে – নির্বাচনের ফলাফল গেজেট বা প্রজ্ঞাপন আকারে জারি হবার পরে পুরো নির্বাচনের ফলাফল বাতিল করা যাবে না।

পরবর্তীতে একটি সংবাদ বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে নির্বাচন কমিশন দাবি করেছে যে ভোট চলাকালীন নির্বাচনের কমিশনের হাতে ব্যাপক ক্ষমতা আছে। কমিশন আবশ্যিক মনে করলে ফলাফল গেজেট প্রকাশ করা স্থগিত রাখতে পারবে। নির্বাচন কমিশন বলছে এই ক্ষমতা আগে ছিল না।

নির্বাচন নিয়ে অভিযোগ তদন্ত করতে পারবে, যেটি আগে পারতো না বলে নির্বাচন কমিশন দাবি করছে। তদন্তের ফলাফলের উপর ভিত্তি করে সঙ্গত মনে করলে যেসব কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ বাধাগ্রস্ত হয়েছে সেসব কেন্দ্রের ফলাফল বাতিল করতে পারবে। বিবিসি বাংলা

সাম্প্রতিক দেশকাল ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন

মন্তব্য করুন

Epaper

সাপ্তাহিক সাম্প্রতিক দেশকাল ই-পেপার পড়তে ক্লিক করুন

Logo

ঠিকানা: ১০/২২ ইকবাল রোড, ব্লক এ, মোহাম্মদপুর, ঢাকা-১২০৭

© 2024 Shampratik Deshkal All Rights Reserved. Design & Developed By Root Soft Bangladesh

// //