পোশাকে লাল-সবুজ

রাজধানীর আজিজ সুপার মার্কেটকে ঘিরে চলছে লাল-সবুজের পোশাক কেনার ধুম। স্বাধীনতার ৫০ বছর উদযাপনের ধুম। 

সরেজমিনে দেখা গেলো- সব দেশীয় ফ্যাশন হাউসেই লাল-সবুজের প্রাধান্য। শুধু শাড়ি বা পাঞ্জাবিতে নয় বরং ফতুয়া, টি-শার্ট, সালোয়ার-কামিজ ও টপসেও মেলে লাল-সবুজের রেখা। সব শ্রেণির মানুষের কথা মাথায় রেখেই তৈরি করা হয় পোশাকগুলো। তাই দামও থাকে সাধ্যের মধ্যে। বাচ্চাদের জন্যও পাওয়া যাচ্ছে হরেক রকম পোশাক।

একটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়েন সুমনা আক্তার। স্বাধীনতা দিবস উদযাপনের জন্য পোশাক কিনতে এসেছেন। তিনি জানালেন, খুব গর্ব হচ্ছে স্বাধীন বাংলাদেশের ৫০ বছর পূর্ণ হচ্ছে। ৩০ লাখ শহীদের রক্তের বিনিময়ে বাংলাদেশ স্বাধীন হয়েছে। একদিকে এদিন শহীদদের জন্য যেমন আমাদের শ্রদ্ধা ও ভালোবাসা থাকে, অন্যদিকে স্বাধীনতার উল্লাসও কাজ করে। তাই নিজেকে জাতীয় পতাকার রঙে সাজিয়ে বন্ধুদের সঙ্গে আনন্দ উল্লাসে দিনটি উদযাপন করব। এজন্য লাল-সবুজের নতুন একটি শাড়ি কিনতে এসেছি। কপালের টিপ থেকে শুরু করে হাতে কাচের চুড়িও লাল-সবুজ রঙ ফুটিয়ে তুলতে অনেক ভালো লাগে।

৫০ বছর উদযাপনে জন্য বসুন্ধরা শপিং কমপ্লেকসে নতুন পোশাক কিনতে এসেছেন নূর সিয়াম। তিনি জানান, স্বাধীনতা দিবসে লাল-সবুজ পাঞ্জাবি পরে স্মৃতিসৌধে বন্ধুরা মিলে ফুল দিতে যাই। যে কারণে বরাবরের মতো এ বছরও লাল-সবুজ রঙের পাঞ্জাবি কিনতে এসেছি। স্বাধীনতা শব্দটাই একটা আনন্দ। এই দিনে আমরা স্বাধীন হয়েছি। এজন্য এই দিন আমাদের উল্লাসে যেন কমতি থাকে না। 

নিউমার্কেট, নূরজাহান, এলিফেন্ট রোড, বসুন্ধরা, যমুনা ফিউচার পার্ক ঘুরে দেখা যায়, দেশীয় পোশাক হাউস থেকে শুরু করে বিভিন্ন ব্র্যান্ডের শোরুমে লাল-সবুজের পোশাক শোভা পেতে শুরু করেছে। স্বাধীনতা দিবসকে ঘিরে নানা রঙের পোশাক প্রদর্শনী করা হয়েছে। 

বসুন্ধরা শপিং মলে দেশীয় পোশাকের ব্র্যান্ডের শোরুম অঞ্জনসের ব্রাঞ্চ ইনচার্জ রেজাউল করিম বলেন, স্বাধীনতা দিবসকে ঘিরে আমাদের প্রস্তুতিও বরাবরের মতো আছে। ইতিমধ্যে আমরা লাল-সবুজের পোশাক শোরুমে তুলেছি। ছেলেদের পাঞ্জাবি, মেয়েদের শাড়ি, থ্রি-পিস, টু-পিস, ওয়ান পিস বিক্রি শুরু হয়েছে। তবে সবচেয়ে আকর্ষণীয় হচ্ছে ফ্যামেলি প্যাকেজ। কারণ একই ডিজাইনের মধ্যে পরিবারের সব সদস্যদের জন্য পোশাক তৈরি হয়েছে। প্রেমিকযুগলদের কাছেও এ প্যাকেজের বেশ কদর রয়েছে। কারণ এ উৎসবে তারা একই নকশার পোশাক পরে বিজয় উৎসব পালন করেন। 

বিশ্ব ‘রঙ’-এর স্বত্বাধিকারী বিপ্লব সাহা বলেন, স্বাধীনতা দিবস যেহেতু জাতীয় উৎসব, তাই সেই দিনে সবাই দেশীয় কাপড় আর গয়না পরবেন বলেই আশা করি। এ ক্ষেত্রে প্রাধান্য পায় পতাকার রঙ দুটি- লাল ও সবুজ। এর সঙ্গে আসতে পারে সাদা-হলুদ, কালো-সাদা। কী ধরনের পোশাক পরবে সেটা আসলে বয়সের উপরেও নির্ভর করে। 

মন্তব্য করুন

Epaper

সাপ্তাহিক সাম্প্রতিক দেশকাল ই-পেপার পড়তে ক্লিক করুন

Logo

ঠিকানা: ১০/২২ ইকবাল রোড, ব্লক এ, মোহাম্মদপুর, ঢাকা-১২০৭

© 2021 Shampratik Deshkal All Rights Reserved. Design & Developed By Root Soft Bangladesh