ফ্যাশনে জার্সি

ফাইল ছবি

ফাইল ছবি

কোপা আমেরিকা কাপ কিংবা বিশ্বকাপ ফুটবল ও ক্রিকেট অথবা প্রিয় দলের যে কোনো খেলায় দলকে সমর্থন করে বাকযুদ্ধ এখন রীতিমতো গর্বে পরিণত হয়েছে। তার ওপর দল যদি মনের মতো খেলে তাহলে তো কথাই নেই। বাড়ির ছাদে বা দরোজায় দলের পতাকা টাঙিয়েই শেষ নয়, জার্সি পরে খেলা দেখা যেন ফ্যাশন দুনিয়ায় এক ভিন্নমাত্রা যোগ করেছে। প্রিয় দলের খেলার সময় অনেকে জার্সি পরে ঘরের বাইরে বের হন, এমনকি অফিসে পর্যন্তও যান। পছন্দের দলের জার্সি গায়ে জড়ানোই এখন ফ্যাশন। 

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের যুগে নিজেদের প্রোফাইল ছবিটিও দলের জার্সি পরা ছবি দিয়ে পরিবর্তন করে নেন অনেকেই। বিকেলের আড্ডায় বা ঘুরতে গেলে জার্সি জড়িয়ে নেওয়া এখন খুব সাধারণ একটি ব্যাপারে পরিণত হয়েছে। দেশ-বিদেশের মডেল তারকারাও পছন্দের জার্সি গায়ে জড়িয়ে জানান দিচ্ছেন প্রিয় দল সম্পর্কে। রীতিমতো জার্সি পরেই ক্যামেরার সামনে তাদের পোজ দিতে দেখা যায়। 

জার্সি একদিকে যেমন ফ্যাশনের অনুষঙ্গ হয়ে দাঁড়িয়েছে, অন্যদিকে উপহার হিসেবেও বন্ধুদের, সহকর্মীদের, আত্মীয় স্বজনদের জার্সি দিয়ে থাকেন অনেকে। বিশ্বকাপের মৌসুমে বা অন্য যে কোনো খেলায় বন্ধুদের জার্সি উপহার দেওয়া যেতে পারে। বন্ধুরা সবাই একই জার্সিতে সম্প্রীতি আরও পাকাপোক্ত হয় খেলার সময়। প্রিয় দল খেলবে আর দলের একটি জার্সি সংগ্রহে থাকবে না তা কি হয়? কারও সংগ্রহে রয়েছে একাধিক জার্সি। বন্ধুদের সঙ্গে বসে দলের খেলা দেখার সময় গায়ের জার্সিটি আলাদা উন্মাদনা এনে দেয়। এখন যেন এটিই স্বাভাবিক, এটিই ফ্যাশন। ফ্যাশনে বিশ্বকাপ মিলেমিশে একাকার। 

নিজের মাপমতো বা একটু ঢিলেঢালা হলেও ক্ষতি নেই, মানিয়ে যাচ্ছে বেশ। যে ছেলেটি বা মেয়েটি ফিটিং শেপের পোশাক পরতে স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করেন, সেই ছেলেটি বা মেয়েটিও একটি লুজ ফিটিংয়ের জার্সি গায়ে জড়িয়ে দিব্যি ঘুরে বেড়াচ্ছেন। আর মাপমতো পেলে তো কথাই নেই। জার্সির আরামদায়ক ফেব্রিক সারা দিনেও অস্বস্তির কারণ হয় না।

বিশ্বকাপ ক্রিকেটে মাতৃভূমি বাংলাদেশের জার্সি এবং বিশ্বকাপ শুরুর কয়েক দিন আগে থেকেই প্রিয় দলের জার্সি কেনার হিড়িক লেগে ক্রীড়ামোদিদের। বাংলাদেশে বশির ভাগ ফুটবল অনুরাগীদের কাছে আকর্ষণের কেন্দ্র আর্জেন্টিনা আর ব্রাজিল। সঙ্গে অন্যান্য দেশও আছে, তবে তাদের সংখ্যা কম।

যেমন জার্মানি, স্পেন ও পর্তুগালের জার্সির চাহিদাও রয়েছে অনেক। মিরপুর-১, ১০, নিউমার্কেট ও স্টেডিয়াম মার্কেটে জার্সি বিক্রি হয় সবচেয়ে বেশি।

একই দেশের বা ক্লাবের নানা রঙের জার্সি পাওয়া যায় বাজারে। তাই রঙ বদলেও কিনতে পারেন আপনার পছন্দের দলের জার্সি। ফুলহাতা, হাফহাতা এবং হাতা কাটা তিন ধরনের জার্সি কিনতে পাবেন বাজারে। তবে এর মধ্যে হাফহাতার জার্সিটাই বেশি চলছে। সাধারণত জার্সি তৈরিতে আলাদা কাপড় ব্যবহার করা হয়। জার্সি কাপড় নামেই এটি পরিচিত। অনেক জার্সির দুই পাশেই প্রিন্ট আছে। কেনার আগে গলা বা কলারের দিকটাও দেখে নেওয়া যেতে পারে।

মন্তব্য করুন

Epaper

সাপ্তাহিক সাম্প্রতিক দেশকাল ই-পেপার পড়তে ক্লিক করুন

Logo

ঠিকানা: ১০/২২ ইকবাল রোড, ব্লক এ, মোহাম্মদপুর, ঢাকা-১২০৭

© 2021 Shampratik Deshkal All Rights Reserved. Design & Developed By Root Soft Bangladesh

// //