অনূর্ধ্ব-১৭ বিশ্বকাপ ফুটবল

জার্মান যুবাদের বিশ্বজয়

বড়দের ফুটবলে জার্মানি ধুঁকছে। কিন্তু ফিফা বিশ্বকাপ জয় করে নিয়েছে জার্মানির অনূর্ধ্ব-১৭ দল। শিরোপা নির্ধারিত ম্যাচে ফ্রান্সকে টাইব্রেকারে হারিয়ে জার্মানি প্রথমবারের মতো জিতেছে অনূর্ধ্ব-১৭ বিশ্বকাপ ফুটবল ট্রফি। আর ২০০১ সালের চ্যাম্পিয়ন ফ্রান্স প্রথম হারের মুখ দেখল ফাইনালে।

১০ নভেম্বর ইন্দোনেশিয়ার মাটিতে ৬ মহাদেশের ২৪ দল নিয়ে শুরু হয় ১৯তম ফিফা অনূর্ধ্ব-১৭ বিশ্বকাপ। যার পর্দা নেমেছে ২ ডিসেম্বর জার্মানি আর ফ্রান্সের ফাইনালের মধ্য দিয়ে। ফাইনালের নির্ধারিত সময়ের খেলা শেষ হয় ২-২ গোলে। দুই গোলে পিছিয়ে পড়েও ফ্রান্সের ম্যাচে ফেরা ছিল নাটকীয়। কিন্তু তাদের সেই প্রচেষ্টা রূপকথায় পরিণত হয়নি। টাইব্রেকারে লে ব্লুজ যুবারা হেরে গেছে ৪-৩ গোলে। তাতেই বিশ্বজয়ের উল্লাসে মেতেছে জার্মানির অনূর্ধ্ব-১৭ ফুটবল দল।

এবারের যুব বিশ্বকাপের প্রতি পরতে পরতে ছিল উত্তেজনা। জার্মানি আর ফ্রান্স ফাইনালে উঠেছে অপরাজিত হিসেবে। কিন্তু দুই দলের একাধিক জয়ে ছিল ভাগ্যের ছোঁয়া। নকআউট পর্বের শুরতেই ফ্রান্সকে টাইব্রেকারে জিততে হয়েছে সেনেগালের বিপক্ষে। আবার আর্জেন্টিনার বিপক্ষে সেমিফাইনালে জার্মানির জয় ছিল অবিশ্বাস্য। ম্যাচে আর্জেন্টিনার অগাস্টিন রবার্টো হ্যাট্রিক করেও দলকে জেতাতে পারেননি। ৩-৩ গোলে অমীমাংসিত ম্যাচ জার্মানি জিতে যায় টাইব্রেকারে।

টুর্নামেন্টের ‘হট ফেভারিট’ হয়েও আর্জেন্টিনার শিরোপা জিততে না পারা বিস্ময়কর। এমনকি আলবেসেলেস্তে যুবারা তৃতীয় স্থান নির্ধারণী ম্যাচে ০-৩ গোলে উড়ে গেছে আফ্রিকার মালির কাছে। অথচ কোয়ার্টার ফাইনালেই অনূর্ধ্ব-১৭ বিশ্বকাপের চারবারের চ্যাম্পিয়ন ব্রাজিলকে ৩-০ গোলে নাস্তানাবুদ করেছে আর্জেন্টিনা। ম্যাচে হ্যাটট্রিক করেছেন নতুন মেসিখ্যাত ক্লদিও অ্যাচেভেরি। পুরো আসরে পাঁচ গোল করে উজ্জ্বল ভবিষ্যতের বার্তা দিয়ে রেখেছেন অ্যাচেভেরি। যাকে নিয়ে ইতিমধ্যে মেতেছে বিশ্ব ফুটবলের অনুরাগীরা। আর্জেন্টিনার অগাস্টিন রবার্টো ৮ গোল করে জিতেছেন গোল্ডেন বুট। পাঁচ গোল করা অ্যাচেভেরি পেয়েছেন সেরা খেলোয়াড়ের স্বীকৃতি। 

টুর্নামেন্টে চমক দেখিয়েছে মালি। যুব বিশ্বকাপে আফ্রিকান দেশগুলোর রয়েছে বরাবরের দাপট। নাইজেরিয়া অনূর্ধ্ব-১৭ বিশ্বকাপে সবচেয়ে বেশি পাঁচবার শিরোপা জিতেছে। ঘানাও দুবার পেয়েছে শিরোপার স্বাদ। মালি সদ্যসমাপ্ত টুর্নামেন্টের সেমিফাইনালে হেরে যায় ফ্রান্সের কাছে। কিন্তু তৃতীয় স্থান নির্ধারণী ম্যাচে আর্জেন্টিনাকে হারিয়ে মুখ রেখেছে আফ্রিকা মহাদেশের।

২০২৩ সালের অনূর্ধ্ব-১৭ বিশ্বকাপে আগামী দিনের উঠতি তারকাদের সন্ধান মিলেছে। আর্জেন্টিনার অ্যাচেভেরি আর রবার্টোর সঙ্গে নজর কেড়েছেন ইব্রাহিম দিয়ারা। মালির স্ট্রাইকার করেছেন পাঁচ গোল। এ ছাড়া ব্রাজিলের ফ্লুমিনিন্সের ফরোয়ার্ড কায়া ইলিয়াস, জার্মানির জশুয়া বার্নার, জাওয়ানের রেন্টো তাকাওকা ছিলেন অনবদ্য। বয়সভিত্তিক ফুটবলে আলো ছড়ানো সব ফুটবলার ভবিষ্যতে বড় তারকা হবেন, এমন নিশ্চয়তা নেই। বরং প্রতিভাবান ফুটবলারদের একটা বড় অংশের ঝরে পড়ার ইতিহাস প্রচুর। আবার দিয়াগো ম্যারাডোনা, লিওনেল মেসি, কিলিয়ান এমবাপ্পে কিংবা হালের আর্লিং হালান্ডরা প্রথম নজর কেড়েছিলেন বয়সভিত্তিক ফুটবলেই। তারা প্রত্যেকেই বিশ্ব ফুটবলে নিজেদের স্বতন্ত্র জায়গা করে নিয়েছেন। ম্যারাডোনা আর মেসি তো ইতিহাসেরই অংশ। অ্যাচেভেরি, বার্নার আর ইলিয়াসরাও অফুরন্ত প্রতিভার ছাপ রেখেছেন অনূর্ধ্ব-১৭ বিশ্বকাপে। তাদের সেই প্রতিভা কতটা প্রস্ফুটিত হবে, সেই জবাব দেবে অনাগত ভবিষ্যৎ। 

সাম্প্রতিক দেশকাল ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন

মন্তব্য করুন

Epaper

সাপ্তাহিক সাম্প্রতিক দেশকাল ই-পেপার পড়তে ক্লিক করুন

Logo

ঠিকানা: ১০/২২ ইকবাল রোড, ব্লক এ, মোহাম্মদপুর, ঢাকা-১২০৭

© 2024 Shampratik Deshkal All Rights Reserved. Design & Developed By Root Soft Bangladesh

// //