অ্যান্টিজেন পরীক্ষার অনুমোদন পেল আরো ৫৭ প্রতিষ্ঠান

অ্যান্টিজেন পরীক্ষার অনুমোদন পেল আরো ৫৭ প্রতিষ্ঠান। ফাইল ছবি

অ্যান্টিজেন পরীক্ষার অনুমোদন পেল আরো ৫৭ প্রতিষ্ঠান। ফাইল ছবি

করোনাভাইরাস নির্ণয়ের জন্য বেসরকারি পর্যায়ে আরো ৫৭টি হাসপাতাল, ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিককে অ্যান্টিজেন পরীক্ষার অনুমতি দেওয়া হয়েছে।

স্বাস্থ্য অধিদফতরের পরিচালক (হাসপাতাল ও ক্লিনিকসমূহ) ডা. ফরিদ হোসেন মিঞা বৃহস্পতিবার এই অনুমোদন দেন। এর আগে প্রথমবারের মতো ১৮ জুন ৭৮টি প্রতিষ্ঠানকে এই পরীক্ষার অনুমোদন দিয়েছিল স্বাস্থ্য অধিদফতর।

করোনা পরীক্ষায় বেসরকারি পর্যায়ে আরটিপিসিআর করতে সময় লাগে কমপক্ষে ৬ ঘণ্টা এবং ব্যয় হয় প্রায় আড়াই হাজার টাকা। অন্যদিকে অ্যান্টিজেন পরীক্ষায় সময় লাগবে মাত্র ৫ থেকে ১০ মিনিট, ব্যয় করতে হবে মাত্র ৭০০ টাকা। তবে বাড়িতে গিয়ে নমুনা পরীক্ষার জন্য অতিরিক্ত ৫০০ টাকা করে দিতে হবে।একই পরিবারের একাধিক ব্যক্তির ক্ষেত্রে এই চার্জ বাড়বে না। 

এ প্রসঙ্গে ডা. ফরিদ হোসেন মিঞা বলেন, এসব প্রতিষ্ঠান অ্যান্টিজেন পরীক্ষার অনুমতি চেয়ে আবেদন করেছিল। অধিদফতরের শর্ত তারা পূরণ করেছে। এ কারণে আমরা অনুমোদন দিয়েছি।

গত বছর দেশে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ দেখা দিলে রোগ নির্ণয়ে শুধু আরটি-পিসিআর পরীক্ষা করা হতো। গত বছরের ৫ ডিসেম্বর বিনামূল্যে অ্যান্টিজেন পরীক্ষা চালু করে সরকার। এরপর গত ১১ মার্চ স্থানীয় সরকার ও বেসরকারি স্বাস্থ্যসেবা খাতে অ্যান্টিজেন ও অ্যান্টিবডি পরীক্ষার নীতিমালা অনুমোদন করে স্বাস্থ্যসেবা বিভাগ। গত ১ জুন বেসরকারি স্বাস্থ্যসেবা খাতে কোভিড-১৯ রোগ নির্ণয়ে অ্যান্টিজেন পরীক্ষার কিটের নামসহ মূল্য নির্ধারণের জন্য স্বাস্থ্যসেবা বিভাগে প্রস্তাব পাঠায় স্বাস্থ্য অধিদফতর।

দ্বিতীয় পর্যায়ে যেসব প্রতিষ্ঠান অনুমোদন পেয়েছে সেগুলো হলো-আইচি হাসপাতাল উত্তর, ইন্টারন্যাশনাল মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল টঙ্গী, ল্যাব এইড হাসপাতাল ধানমন্ডি, ডিএনএ সল্যুশন লি. পান্থপথ, ঢাকা কমিউনিটি মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, খুলনা সিটি মেডিকেল কলেজ, ফেমাস হসপিটাল অ্যান্ড ডায়াগনস্টিক যাত্রাবড়ী, এইচএএফ জেনারেল হাসপাতাল বাড্ডা, চট্টগ্রাম মা ও শিশু হাসপাতাল, জয়নুল হক শিকদার ওমেন্স মেডিকেল কলেজ গুলশান, আদ-দ্বীন ব্যারিস্টার রফিক উল হক হাসপাতাল পোস্তগোলা, জাপান বাংলাদেশ ফ্রেন্ডশিপ হাসপাতাল ঝিগাতলা, উত্তরা ক্রিসেন্ট হাসপাতাল, শমরিতা হাসপাতাল পান্থপাথ, পার্কভিউ ডায়াগনস্টিক চট্টগ্রাম, মর্ডান ডায়াগনস্টিক সেন্টার ধানমন্ডি, জালালবাদ রাগিব রাবেয়া মেডিকেল কলেজ, ঢাকা ইম্পেরিয়াল হাসপাতাল, কুমুদিনি উইমেন্স মেডিকেল কলেজ মির্জাপুর, মেডিল্যাব হেলথ সেন্টার কিশোরগঞ্জ, কিডনি ফাউন্ডেশন হাসপাতাল মিরপুর, প্রোব বাংলাদেশ লি. আদাবর, আনোয়ার খান মর্ডান মেডিকেল কলেজ ধানমন্ডি, নর্থ ইস্ট মেডিকেল কলেজ সিলেট, বসুন্ধরা মেডিকেল অ্যান্ড ডায়াগনস্টিক সেন্টার শান্তিনগর, কুমিল্লা মেডিকেল সেন্টার, জহুরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ কিশোরগঞ্জ, স্টেমজ হেলথ কেয়ার বিডি লি. বাংলামোটর, স্ট্যান্ডার্ড মেডিকেল সেন্টার ভাটারা, মনোয়ারা হাসপাতাল রমনা, সায়মন মেডিকেল সেন্টার কুড়িল, ট্রান্সওয়ার্ল্ড মেডিকেল সেন্টার কুড়িল, মর্ডান ডায়াগনস্টিক সেন্টার ফকিরাপুল, শিমলা হাসপাতাল পাবনা, আলোক হেলথ কেয়ার মিরপুর-১০, ল্যাব সায়েন্স ডায়াগনস্টিক ধানমন্ডি, ক্যাথারসিস মেডিকেল সেন্টার টঙ্গী, মীম মেডিকেল সেন্টার ভাটারা, রেডিয়াম ডায়াগনস্টিক সেন্টার গাজীপুর, ইনসাফ বারাকা কিডনি অ্যান্ড জেনারেল হাসপাতাল মগবাজার, হেমায়েতপুর সেন্ট্রাল হাসপাতাল সাভার, কুমিল্লা সিটিস্ক্যান, রেডিয়াম ডায়াগনস্টিক সেন্টার জয়দেবপুর, ফ্রেন্ডস কেয়ার হাসপাতাল মুগদা, আল-রিয়াদ মেডিকেল চেকআপ বনানী, ডগমা হাসপাতাল বাড্ডা, শিওরসেল মেডিকেল গুলশান, ডা. লাল প্যাথ ল্যাবস গুলশান, লিডিং হেলথ চেক-আপ রামপুরা, ওয়েলকাম ডায়াগনস্টিক বারিধারা, গণস্বাস্থ্য নগর হাসপাতাল ধানমন্ডি, রেডিয়াম ডায়াগনস্টিক টঙ্গী, রূপসী বাংলা কনসোর্টিয়াম কদমতলী, ডেল্টা হেলথ কেয়ার চট্টগ্রাম, হিউম্যান এইড রিসার্চ কল্যাণপুর, এসকেএস হেলথ সার্ভিসেস কাকরাইল।

পরীক্ষার ক্ষেত্রে অনুমোদিত প্রতিষ্ঠানগুলোকে কিছু শর্ত মানতে হবে- কোভিড-১৯ এর লক্ষণ বা উপসর্গযুক্ত ব্যক্তি এবং বিগত ১৪ দিনের মধ্যে কোভিড পজিটিভ রোগীদের সংস্পর্শে এসেছে তাদের ক্ষেত্রে এই পরীক্ষা প্রযোজ্য। রিপোর্ট পজিটিভ হলে স্বাস্থ্য অধিদফতরের ডিএইচআইএস-২ সার্ভারে এন্ট্রি দিতে হবে। রিপোর্ট নেগেটিভ হলে আরটি পিসিআরে পরীক্ষা করাতে হবে। সরকার অনুমোদিত এন্টিজেন কিট ব্যবহার করতে হবে।

মন্তব্য করুন

Epaper

সাপ্তাহিক সাম্প্রতিক দেশকাল ই-পেপার পড়তে ক্লিক করুন

Logo

ঠিকানা: ১০/২২ ইকবাল রোড, ব্লক এ, মোহাম্মদপুর, ঢাকা-১২০৭

© 2021 Shampratik Deshkal All Rights Reserved. Design & Developed By Root Soft Bangladesh

// //