মিয়ানমারের আপত্তি খারিজ, রায়কে স্বাগত জানালো বাংলাদেশ

রোহিঙ্গা গণহত্যার মামলা বিচারের এখতিয়ার নিয়ে মিয়ানমারের আপত্তির খারিজ করে দিয়েছে ইন্টারন্যাশনাল কোর্ট অব জাস্টিস (আইসিজে)। এর ফলে এই মামলার মামলার পূর্ণাঙ্গ শুনানির পথে আর কোনো বাধা রইল না। আন্তর্জাতিক বিচার আদালতের এই রায়কে স্বাগত জানিয়েছে বাংলাদেশ।

গণহত্যার অভিযোগে জাতিসংঘের এ আদালতে মামলা করেছিল গাম্বিয়া। তবে ২০২১ সালে সামরিক অভিযানের মধ্য দিয়ে মিয়ানমারের ক্ষমতায় বসা সামরিক জান্তার দাবি করেছিল, জাতিসংঘের এ আদালতে মামলা করার এখতিয়ার গাম্বিয়ার নেই।

মিয়ানমারের সেই আপত্তি নিয়ে আইসিজেতে গত ২১ থেকে ২৮ ফেব্রুয়ারি চারটি গণশুনানি হয়। গতকাল শুক্রবার (২২ জুলাই) সেই মামলাই রায় দিল নেদারল্যান্ডসের হেগে শহরের এ আদালত।

এদিকে গতকাল শুক্রবার (২২ জুলাই) রাতে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, গাম্বিয়া এবং মায়ানমারের মধ্যে গণহত্যা কনভেনশনের আবেদন বা গ্রহণযোগ্যতার বিষয়ে মিয়ানমারের প্রাথমিক আপত্তির বিষয়ে ২২ জুলাই আন্তর্জাতিক বিচার আদালত কর্তৃক প্রদত্ত রায়কে বাংলাদেশ স্বাগত জানায়।

বাংলাদেশের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, আইসিজে রায় আইনি এবং পদ্ধতিগত ভিত্তিতে মিয়ানমারের চারটি প্রাথমিক আপত্তি প্রত্যাখ্যান করেছে। আন্তর্জাতিক ন্যায়বিচার ও জবাবদিহিতার প্রশ্নটি রোহিঙ্গা সঙ্কটের একটি টেকসই সমাধান খুঁজে বের করার ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ হবে এবং রোহিঙ্গাদের তাদের বৈধ অধিকার পুনরুদ্ধার করে মিয়ানমারে তাদের গৃহে টেকসই প্রত্যাবাসনের জন্য একটি আস্থা তৈরির ব্যবস্থাও প্রমাণিত হবে বলে বাংলাদেশ মনে করে।

রোহিঙ্গাদের ওপর চালানো গণহত্যা-নির্যাতন নিয়ে ২০১৯ সালে মামলাটির প্রাথমিক শুনানিতে মিয়ানমারের সামরিক বাহিনীর পক্ষে সাফাই গেয়েছিলেন দেশটির নোবেলজয়ী নেত্রী অং সান সু চি। তিনি এখন সেই সামরিক জান্তার হাতে বন্দি।

গত বছরের ফেব্রুয়ারিতে মিয়ানমারের নির্বাচিত সরকারকে উৎখাত করে ক্ষমতা দখল করে বর্তমান জান্তা। এই সরকার জাতিসংঘের স্বীকৃতি না পেলেও তাদের ঠিক করে দেওয়া আট সদস্যের দল আইসিজেতে লড়ছে। এ দলে নেতৃত্ব দিচ্ছেন মিয়ানমারের অ্যাটর্নি জেনারেল থিডাও।

পাঁচ বছর আগে রাখাইনে রোহিঙ্গাদের গ্রামে গ্রামে মিয়ানমারের সেনাবাহিনীর অভিযানে যে বর্বরতা চালানো হয়, তার মধ্য দিয়ে দেশটি ১৯৪৮ সালের আন্তর্জাতিক গণহত্যা কনভেনশন ভঙ্গ করেছে বলে অভিযোগ করা হয়েছে গাম্বিয়ার করা মামলায়।গাম্বিয়ার সাবেক অ্যাটর্নি জেনারেল বাংলাদেশের একটি শরণার্থী শিবির পরিদর্শন করার পর বলেন, জাতিসংঘের গণহত্যা কনভেনশন সমুন্নত রাখা সব দেশের দায়িত্ব। মিয়ানমারে চালানো গণহত্যা রোধ ও রক্তপাত বন্ধে এই মামলায় ৫৭ জাতি সংগঠন ওআইসির সমর্থন রয়েছে।

সাম্প্রতিক দেশকাল ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন

Ad

মন্তব্য করুন

Epaper

সাপ্তাহিক সাম্প্রতিক দেশকাল ই-পেপার পড়তে ক্লিক করুন

Logo

ঠিকানা: ১০/২২ ইকবাল রোড, ব্লক এ, মোহাম্মদপুর, ঢাকা-১২০৭

© 2022 Shampratik Deshkal All Rights Reserved. Design & Developed By Root Soft Bangladesh

// //