শিশুশাসন নিয়ে মাদ্রাসা প্রধানদের সতর্ক করলেন হাইকোর্ট

ফাইল ছবি

ফাইল ছবি

চট্টগ্রামের হাটহাজারীতে এক মাদ্রাসায় আট বছর বয়সী শিশু শিক্ষার্থীকে বেধড়ক পেটানোর ঘটনায় প্রশাসনের পক্ষ থেকে যে পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়েছে এতে সন্তোষ প্রকাশ করেছেন হাইকোার্ট। 

তবে শিশু শিক্ষার্থীদের শাসন করার বিষয়ে ওই মাদ্রাসাসহ সব মাদ্রাসার প্রধানদের সতর্ক করেছেন আদালত। একইসাথে দেশের সব মাদ্রাসার শিক্ষকদেরও এ বিষয়ে সতর্ক থাকতে বলা হয়েছে।

শুনানির নির্ধারিত দিনে আজ রবিবার (১৪ মার্চ) হাইকোর্টের বিচারপতি নাজমুল আহাসান ও বিচারপতি শাহেদ নূর উদ্দিনের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ স্বপ্রণোদিত হয়ে এসব পর্যবেক্ষণ দেন। বিষয়টি আদালতের পর্যবেক্ষণে থাকবে বলেও মন্তব্য করেন হাইকোর্ট।

এসময় হাইকোর্ট বলেন, মাদ্রাসায় নির্যাতন, বিভিন্ন মানসিক ও শারীরিক নির্যাতন, এমনকি যৌন নির্যাতনের ঘটনাও ঘটতে দেখা যায়। এ বিষয়ে অনেক আগে থেকে আদালতের নির্দেশনা আছে। নির্দেশনাগুলো সব জায়গায় যাতে কার্যকর হয়। কমিটি গঠনসহ আদালতের নির্দেশনার যথাযথ বাস্তবায়নে মাদ্রাসা কর্তৃপক্ষ যাতে সচেষ্ট থাকে।

শুনানিকালে আদালত আরো বলেন, মারধরের শিকার শিশুটির লেখাপড়া ভয়ভীতির কারণে বন্ধ হয়ে না যায়, এটি যেন তারা খেয়াল রাখে।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল ব্যারিস্টার আবদুল্লাহ আল মাহমুদ বাশার।

তিনি বলেন, শিশু নির্যাতনের ঘটনায় ধারণ করা ভিডিও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ও গণমাধ্যমে প্রকাশ হওয়ার পরে চট্টগ্রামের মাদ্রাসার শিশু নির্যাতনের ঘটনায় ওই শিক্ষকের বিরুদ্ধে কী পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে তা জানাতে সংশ্লিষ্ট জেলা প্রশাসক (ডিসি), পুলিশ সুপার (এসপি) ও থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসিকে) ১১ মার্চ নির্দেশ দিয়েছিলেন হাইকোর্ট। এর শুনানির জন্য আজ দিন ধার্য ছিল। নির্ধারিত দিনে চট্টগ্রামের জেলা প্রশাসক (ডিসি) মোহাম্মদ মমিনুর রহমান স্বাক্ষরিত প্রতিবেদন সংশ্লিষ্ট আদালতে দাখিল করা হয়।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, শিশু শিক্ষার্থীকে নির্যাতনের ঘটনার পর তার মা-বাবা অভিযুক্ত শিক্ষকের বিরুদ্ধে মামলা করতে রাজি হননি। পরে পুলিশ বাদী হয়ে মামলা করার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে। এরপর তাকে গ্রেফতার করা হয় ও মাদ্রাসা থেকেও বহিষ্কার করা হয়েছে। একইসাথে শিশুটির গ্রামের বাড়িতে পর্যাপ্ত নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে।

এর আগে বিষয়টি নিয়ে বিভিন্ন গণমাধ্যম ও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে প্রকাশিত খবর ও ভিডিও রাষ্ট্রপক্ষ থেকে আদালতের নজরে আনলে স্বপ্রণোদিত হয়ে আদেশ দেন হাইকোর্ট।

মন্তব্য করুন

Epaper

সাপ্তাহিক সাম্প্রতিক দেশকাল ই-পেপার পড়তে ক্লিক করুন

Logo

ঠিকানা: ১০/২২ ইকবাল রোড, ব্লক এ, মোহাম্মদপুর, ঢাকা-১২০৭

© 2021 Shampratik Deshkal All Rights Reserved. Design & Developed By Root Soft Bangladesh