সেরা কিছু ইনডোর প্ল্যান্ট

ঘরের শোভা বর্ধনে ইনডোর প্ল্যান্টের জুড়ি নেই। শুধু শোভা বর্ধন নয়, ইনডোর প্ল্যান্ট স্বাস্থ্যও ভালো রাখে। বিভিন্ন ধরনের ইনডোর প্ল্যান্ট সাধারণত ঘরের বাতাসের গুণমান বাড়ায়। ঘরের কোণে, জানালায় বা ব্যালকনিতে ইনডোর প্ল্যান্ট রাখার পরিকল্পনা করছেন।

কিন্তু বুঝতে পারছেন না কোন প্ল্যান্ট রাখবেন। কয়েকটি ইনডোর প্ল্যান্টের সন্ধান জেনে নিতে পারেন, যেগুলো সহজেই ঘরের কোণে বেড়ে উঠবে। অন্দরের সৌন্দর্য বাড়াবে, আবার যত্নও কম নিতে হয়।

পিস লিলি: যারা ইনডোর প্ল্যান্টের বেশি যত্ন নিতে ভালোবাসেন, তারা বেছে নিতে পারেন পিস লিলি বা স্পাথিফিলম। কারণ এই প্ল্যান্ট অতিরিক্ত পানি পছন্দ করে। আবার এর জন্য যথেষ্ট আলোও প্রয়োজন। এই প্ল্যান্টটি বিড়াল ও কুকুরের জন্য বিষাক্ত।

মনেস্ট্রা ডেলিসিওসা: এটি সুইস উদ্ভিদ হিসেবেও পরিচিত। এটি মূলত মেক্সিকো ও মধ্য আমেরিকার উদ্ভিদ। এই ক্রান্তীয় উদ্ভিদটির পাতাগুলো খাঁজযুক্ত; যা এই প্লান্টের মূল সৌন্দর্য। হালকা পানি ও মোটামুটি আলোযুক্ত স্থান দরকার। এই উদ্ভিদটিও বিড়াল ও কুকুরের জন্য বিষাক্ত।

স্পাইডার প্ল্যান্ট: বাড়িতে রাখার জন্য স্পাইডার প্ল্যান্টের চেয়ে ভালো আর কী হতে পারে? দ্রুত বর্ধনশীল এই গাছের অঙ্কুর থেকে ‘চারা গাছ’ তৈরি করা সম্ভব। যেখানে সহজে আলো প্রবেশ করে সেখানে এই গাছ রাখা ভালো। স্পাইডার প্ল্যান্টে সপ্তাহে একবার পানি দিতে হবে।

স্নেক প্ল্যান্ট: স্নেক প্ল্যান্ট পানি ছাড়াও দীর্ঘদিন বেঁচে থাকে। গুড হাউজিংয়ের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, স্নেক প্ল্যান্ট পানি ছাড়াই এক মাস বেঁচে থাকতে পারে। এর পাতাগুলো সাধারণত শক্ত, তীক্ষ্ন ও স্পাইকযুক্ত হয়। এই উদ্ভিদটি বিড়াল ও কুকুরের জন্য বিষাক্ত।

মিনি জেড প্ল্যান্ট: জেড প্ল্যান্ট তার বৃত্তাকার পাতায় পানি ধরে রাখে। তাই কখনো কখনো পরিচর্যা ছাড়াই এগুলো এক মাসেরও বেশি সময় বেঁচে থাকতে পারে। মিনি জেড প্ল্যান্ট রৌদ্রোজ্জ্বল ব্যালকনিতে বা জানালায় রাখতে হবে। কখনো টবের মাটি শুষ্ক মনে হলে পানি দিতে হবে।

স্ট্রিং অব হার্ট: স্ট্রিং অব হার্ট দক্ষিণ আফ্রিকার উদ্ভিদ। এদের হার্ট আকৃতির পাতা আছে। এজন্য এর নাম স্ট্রিং অব হার্ট; যা এই উদ্ভিদের মূল সৌন্দর্য। এর লতাগুলো সাধারণত ১২ ফুট পর্যন্ত লম্বা হয়।

ফিলোডেনড্রন: গ্রিক শব্দ ফিলো থেকে এই উদ্ভিদের নামকরণ। যার অর্থ ‘প্রেম’ এবং ডেনড্রনের অর্থ ‘গাছ’। বেশিরভাগ ফিলোডেনড্রন ঘরের অন্ধকার কোণে মানিয়ে নিতে পারে এবং খুব কম পানি সহনশীল। সপ্তাহে একবার পানি দিতে হবে।

রাবার প্ল্যান্ট: কম যত্নেও বেড়ে উঠতে পারে রাবার প্ল্যান্ট। এগুলো এশীয় অঞ্চলের উদ্ভিদ। এই প্ল্যান্টের জন্য খুব বেশি আলোর প্রয়োজন হয় না। সপ্তাহে মাত্র একবার পানি দিলেই যথেষ্ট। এই উদ্ভিদটি বিড়াল ও কুকুরের জন্য বিষাক্ত।

সাম্প্রতিক দেশকাল ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন

Ad

মন্তব্য করুন

Epaper

সাপ্তাহিক সাম্প্রতিক দেশকাল ই-পেপার পড়তে ক্লিক করুন

Logo

ঠিকানা: ১০/২২ ইকবাল রোড, ব্লক এ, মোহাম্মদপুর, ঢাকা-১২০৭

© 2023 Shampratik Deshkal All Rights Reserved. Design & Developed By Root Soft Bangladesh

// //