ইসরায়েলি ট্যাংকারে হামলা : ইরানকে দায়ী করলো যুক্তরাষ্ট্র ও যুক্তরাজ্য

এমভি মার্সার স্ট্রিট নামের ট্যাংকারটিতে হামলা হয়। ছবি : বিবিসি

এমভি মার্সার স্ট্রিট নামের ট্যাংকারটিতে হামলা হয়। ছবি : বিবিসি

আরব সাগরে ইসরায়েলি তেল ট্যাংকারে হামলার পেছনে ইরান জড়িত রয়েছে বলে মনে করছে যুক্তরাষ্ট্র ও যুক্তরাজ্য। ইরান আন্তর্জাতিক আইন ভঙ্গ করেছে বলে উল্লেখ করে এর পাল্টা জবাব দেয়া হবে বলে অঙ্গীকার করেছে দেশ দুটি।

এমভি মার্সার স্ট্রিট নামের ট্যাংকারটি গত বৃহস্পতিবার ওমান উপকুলে হামলার শিকার হয়। এই হামলায় জাহাজের দুইজন ক্রু নিহত হয়, যাদের একজন ব্রিটিশ ও অপরজন রোমানিয়ান নাগরিক।

এক বিবৃতিতে ব্রিটিশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী ডমিনিক রাব বলেছেন, এই হামলায় ইরান এক বা একের অধিক ড্রোন ব্যাবহার করেছে। এই হামলা পরিষ্কারভাবে আন্তর্জাতিক আইন লঙ্ঘন। ইরানকে এসব হামলা অবশ্যই বন্ধ করতে হবে। জাহাজ চলাচলে সুযোগ দিতে হবে।

মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্টনি ব্লিংকেন হুমকি দিয়ে বলেছেন, এই হামলার পিছনে যে ইরান দায়ী এ ব্যাপারে তারা আত্মবিশ্বাসী ও এর জুতসই পাল্টা জবাব আসছে।

ইসরাইলের প্রধানমন্ত্রী নাফতালি বেনেত গতকাল রবিবারই (১ আগস্ট) বলেছেন, এই হামলার জন্য যে তাদের চিরশত্রু ইরান দায়ী তেমন ‘প্রমাণ’ রয়েছে।

এরপরই যুক্তরাষ্ট্র ও যুক্তরাজ্যের তরফ থেকে এমন বিবৃতি এলো। বেনেত হুমকি দিয়ে বলেন, ‘আমরা জানি কিভাবে আমাদের মতো করে ইরানকে বার্তা দিতে হয়।’

ইসরাইলের প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, ইরান যে ভুল করছে তা আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের ইরানকে পরিষ্কার বুঝিয়ে দেয়া উচিৎ।

এসব অভিযোগকে ভিত্তিহীন উল্লেখ করে হামলার অভিযোগ করেছে ইরান। দেশটির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র সাঈদ খাতিবজাদে বলেছেন, ইসরায়েলের ইহুদিবাদী শাসনব্যবস্থা এক ধরনের নিরাপত্তাহীনতা, সন্ত্রাস ও সহিংসতা তৈরি করেছে। ইহুদিবাদী সরকারকে ইরানের বিরুদ্ধে ভিত্তিহীন অভিযোগ উত্থাপন বন্ধ করতে হবে। তেহরানের বিরুদ্ধে ইসরাইলের এ ধরনের অভিযোগ উত্থাপন এটিই প্রথম নয়।

যুক্তরাষ্ট্রের অভিযোগকে ‘শিশুসুলভ’ আখ্যায়িত করে তিনি বলেন, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে সুপরিচিত ইহুদিবাদী লবির চাপে ওয়াশিংটন তেল আবিবের সঙ্গে কণ্ঠ মিলিয়েছে।

ইরান ও ইসরাইলের মধ্যে এক ধরনের অঘোষিত 'ছায়া যুদ্ধ' চলছে যা এই ট্যাংকার হামলাকে ঘিরে আরো তীব্র হলো। মার্চ মাস থেকে ইসরায়েল ও ইরান দুই পক্ষের জাহাজে বেশ কয়েকটি হামলা হয়েছে। এই হামলাগুলোকে প্রতিশোধমূলক বলে মনে করা হচ্ছে। ইরান অপরদিকে তাদের পরমাণু কেন্দ্র ও সেখানে কর্মরত বিজ্ঞানীদের ইসরাইল টার্গেট করছে বলে অভিযোগ করছে।

ভিয়েনাতে ইরানের পরমাণু কর্মসূচি নিয়ে যে আলোচনা চলছে সেই পটভূমিতে নতুন করে আবার উত্তেজনা দেখা দিচ্ছে। এই আলোচনার মাধ্যমে ২০১৫ সালের একটি চুক্তিকে পুনর্বহাল করার চেষ্টা করা হচ্ছে। যাতে পরমাণু কর্মসূচি কমিয়ে আনার বিনিময়ে ইরানের উপর থেকে অবরোধ তুলে নেয়া হয়।

ইরান পারমানবিক বোমা তৈরি করছে, পশ্চিমা বিশ্বের এমন অভিযোগের জবাবে ইরান সবসময় বলে আসছে তার মূলত বিদ্যুৎ উৎপাদনে এই কর্মসূচি পরিচালনা করছে। - বিবিসি

মন্তব্য করুন

Epaper

সাপ্তাহিক সাম্প্রতিক দেশকাল ই-পেপার পড়তে ক্লিক করুন

Logo

ঠিকানা: ১০/২২ ইকবাল রোড, ব্লক এ, মোহাম্মদপুর, ঢাকা-১২০৭

© 2021 Shampratik Deshkal All Rights Reserved. Design & Developed By Root Soft Bangladesh

// //