উপ-নির্বাচন ঘিরে আ.লীগ-বিএনপির পাল্টাপাল্টি বক্তব্য

পাবনা-৪, ঢাকা-৫ ও নওগাঁ-৬ আসনের উপ-নির্বাচনকে কেন্দ্র করে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ ও বিএনপির মধ্যে পাল্টাপাল্টি বক্তব্যে চলছে। একদিকে নির্বাচনে অংশগ্রহণের নামে বিএনপি নাটক করেছে বলে দাবি সরকারি দলের। অন্যদিকে, অনিয়মের অভিযোগ এনে ফলাফল প্রত্যাখ্যান করেছে বিএনপি।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেন, সরকার ও নির্বাচন কমিশনকে প্রশ্নবিদ্ধ করতেই নির্বাচনে অংশ নিয়েছে বিএনপি। নির্বাচনে অংশগ্রহণের নামে বিএনপি তামাশার নাটক করেছে বলেও মন্তব্য করেন কাদের।

এর আগে প্রধান নির্বাচন কমিশনার এম নুরুল হুদা দাবি করেছেন, গতকাল অনুষ্ঠিত ঢাকা-৫ এবং নওগাঁ-৬ আসনের উপ-নির্বাচন সুষ্ঠু হয়েছে। তার কাছে আনুষ্ঠানিক কোনো অভিযোগ আসেনি। তবে এ উপনির্বাচনে ভোটার উপস্থিতি কম হওয়ার বিষয়ে সিইসি বলেছেন, করোনা পরিস্থিতি, স্বল্প মেয়াদ এবং সরকার পরিবর্তনের মতো বড় কোনো বিষয় না থাকায় ভোটার উপস্থিতি কম হয়েছে।

এদিকে, অনিয়মের অভিযোগ এনে পাবনা-৪, ঢাকা-৫ ও নওগাঁ-৬ আসনের নির্বাচনের ফলাফল প্রত্যাখ্যান করেছে বিএনপি। একইসাথে এ উপ-নির্বাচনের ফলাফল বাতিল করে পুনর্নির্বাচনের দাবি জানিয়েছে দলটি। এ দাবিতে আগামীকাল (সোমবার) সারা দেশে মহানগর ও জেলা সদরে এবং মঙ্গলবার থানা, উপজেলা পর্যায়ে বিক্ষোভ সমাবেশ ও মানববন্ধন কর্মসূচি ঘোষণা করেছে  দলটি। আজ (রোববার) বিএনপি চেয়ারপারসনের কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে বিএনপি  মহাসচিব  মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর এ কর্মসূচি ঘোষণা করেন।

এদিকে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান বলেছেন, বর্তমান সরকার ও নির্বাচন কমিশন (ইসি) নির্বাচনের নামে নাটক করছে। আজ সকালে জিয়াউর রহমান ফাউন্ডেশনের ২১তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষ্যে শেরেবাংলা নগরে বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের মাজার জিয়ারত শেষে তিনি এসব কথা বলেন।

এ সময় নজরুল ইসলাম বলেন, গতকালও ঢাকা এবং নওগাঁয় নির্বাচনের নামে প্রহসন হয়েছে। ঢাকার আসনে ভোট পড়েছে ১০ শতাংশ-এটা কি করে হয়? আমাদের কোনো এজেন্টকে কেন্দ্রে ঢুকতে দেয়া হয়নি। এমনকি নির্বাচনী প্রচারণায়ও তারা বাধা সৃষ্টি করেছে।

এদিকে, মধ্যবর্তী নির্বাচন নিয়ে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের বক্তব্যের জবাবে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, আমরা মধ্যবর্তী নির্বাচনের কথা বলিনি। আমরা তো ২০১৮ সালের নির্বাচনই মানি না। সেটাকেই অবৈধ বলছি। সেটাকেই বাতিল করার কথা বলছি। আমাদের সকল স্টেটমেন্টে একথা বলেছি যে, ওই নির্বাচন আমরা মানি না, ওটা বাতিল করে ফ্রেশ ইলেকশন দেয়া হোক। ব্যক্তিগতভাবে কেউ বলতে পারেন। সেটা তাদের অপিনিয়ন।

তিনি বলেন, সম্প্রতি পাবনা, ঢাকা-৫ ও নওগাঁ-৬ এর জাতীয় সংসদের উপ-নির্বাচনে আওয়ামী লীগ এবং সরকার দলীয় সন্ত্রাসী আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সহায়তায় ২০১৮ সালের জাতীয় নির্বাচনের মতই ত্রাস সৃষ্টি করে এবং কেন্দ্র দখল করে জাল ভোট দিয়ে সীল মেরে বিরোধী দলের এজেন্টদের কেন্দ্র থেকে জোর করে বের করে দিয়ে ভোট ছিনতাই করে। নির্বাচন কমিশন নির্বিকার দর্শকের ভূমিকা পালন করে। রিটার্নিং অফিসার ধানের শীষের প্রার্থীদের অভিযোগ গ্রহণ করেনি।


মন্তব্য করুন

Epaper

সাপ্তাহিক সাম্প্রতিক দেশকাল ই-পেপার পড়তে ক্লিক করুন

Logo

© 2020 Shampratik Deshkal All Rights Reserved. Design & Developed By Root Soft Bangladesh