বছরব্যাপী স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপন করবে বিএনপি

আওয়ামী লীগ, মুক্তিযুদ্ধের মূলচেতনা গণতন্ত্র ধ্বংস করেছে বলে অভিযোগ করেছে বিএনপি। সেই চেতনা ফিরিয়ে আনতে মূল থিম রেখে বিএনপি স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীর কর্মসূচি উদযাপন করবে বলে জানিয়েছেন দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন।

স্বাধীনতার ৫০ বছর পূর্তি উপলক্ষে বছরব্যাপী কর্মসূচি হাতে নিয়েছে বিএনপি।

আজ রবিবার (২২ নভেম্বর) সংবাদ সম্মেলনে সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপন কমিটির আহ্বায়ক ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেন, মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস, দেশের অগ্রগতিতে শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমান ও বিএনপির অবদান এবং বর্তমান রাজনৈতিক পরিস্থিতি নিয়ে দলের কর্মসূচি তৃণমূল পর্যন্ত নিতে চান তাঁরা। তিনি আরো বলেন, দলের নেতাকর্মীরা গুম, খুন ও নির্যানের শিকার হলেও উদ্দীপনার সঙ্গে স্বাধীনতার ৫০ বছর উদযাপন করতে চায় বিএনপি।

বিএনপির স্থায়ী কমিটির এই সদস্য বলেন, ‘সরকার এত দিন যে চরিত্র তারা দেখিয়েছে আমরা আশা করি, এই সুবর্ণজয়ন্তী পালনে শুধু বিএনপি নয়, বাংলাদেশের যেকোনো জনগণের যেভাবে ইচ্ছে সুবর্ণজয়ন্তী পালন করার অধিকার এবং সুযোগ দেওয়া উচিত। এটা আমরা সরকারের কাছে প্রত্যাশা করি। আর যদি এটা না করে তাহলে সরকার আসলে মুক্তিযুদ্ধের সপক্ষের, স্বাধীনতার সপক্ষের শক্তি কি না- এটা নিয়ে কিন্তু জনগণের মধ্যে প্রশ্ন আসবে।’

মুক্তিযুদ্ধের আকাঙ্ক্ষা পুরোপুরি বাস্তবায়িত হয়নি মন্তব্য করে এর জন্য ক্ষমতাসীনদের দায়ী করেন ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন। তিনি আরো বলেন, ‘সম্পদের যে বিশাল বৈষম্য এটা সৃষ্টি হয়েছে সরকারের ১২ বছর সময়কালে বিশেষভাবে। এটা জনগণের ও মুক্তিযোদ্ধাদের প্রত্যাশা ছিল না। প্রত্যাশা ছিল সাম্য।’

মানুষের গণতান্ত্রিক অধিকার রীতিমতো দুঃস্বপ্নে পরিণত হয়েছে উল্লেখ করে বিএনপির এই শীর্ষ নেতা বলেন, ‘ক্ষমতায় থাকার স্বার্থে গণতন্ত্রকে টুঁটি চেপে হত্যা করা হয়েছে। স্বাধীনতার ৫০ বছর পূর্তিতে মূল থিম থাকবে, আমরা বাংলাদেশকে বাংলাদেশের মূল চেতনায় ফিরিয়ে নিয়ে যেতে চাই। সেই চেতনাকে বাংলাদেশে প্রতিষ্ঠা করতে চাই।’

বিএনপি শুধু মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের শক্তিই নয়, রণাঙ্গনের সক্রিয় মুক্তিযোদ্ধাদের দল বলে দাবি করেন খন্দকার মোশাররফ হোসেন।

সংবাদ সম্মেলনে আরো জানানো হয়, বিএনপির স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপন কর্মসূচির মধ্যে থাকবে- বিষয়ভিত্তিক রচনা প্রতিযোগিতা, অঙ্কন প্রতিযোগিতা, চিত্র প্রদর্শনী, বিষয়ভিত্তিক প্রকাশনা যেমন- গণতন্ত্র, মানবাধিকার, নারীর ক্ষমতায়, বৈদেশিক নীতি, সমাজতন্ত্র থেকে মুক্তবাজার অর্থনীতি, অর্থনৈতিক উন্নয়নে বিএনপির ভূমিকা, স্বাধীনতার ঘোষক শহীদ জিয়াউর রহমানের কর্মসূচিভিত্তিক কর্মশালা, বিএনপির শাসনামলের সাফল্য, পুস্তিকা প্রকাশ, লিফলেট বিতরণ, ডকুমেন্টারি নির্মাণ, নৃত্যনাট্য, পথনাটক, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, ভ্রাম্যমাণ প্রদর্শনী, বিভিন্ন জাতীয় গুরুত্বপূর্ণ বিষয় সেমিনার-সিম্পোজিয়াম, বাংলাদেশের স্বাধীনতার ঘোষণা, স্বনির্ভর বাংলাদেশ গঠনে বিএনপির ভূমিকা, বাংলাদেশি জাতীয়তাবাদী দর্শন, দেশ গঠনে জিয়ার ১৯ দফার ভূমিকা, সেনাবাহিনীকে আধুনিক বাহিনীতে রূপান্তর, শহীদ জিয়ার উন্নয়নের রাজনীতি প্রভৃতি বিষয়ে আলোচনা সভা এবং ছয়টি বিষয়ভিত্তিক প্রকাশনা।

এছাড়া মহানগর-জেলা-উপজেলা পর্যায়ে আলোচনা সভা, সমাবেশ ও শোভাযাত্রাও রয়েছে কর্মসূচির মধ্যে।

মন্তব্য করুন

Epaper

সাপ্তাহিক সাম্প্রতিক দেশকাল ই-পেপার পড়তে ক্লিক করুন

Logo

© 2020 Shampratik Deshkal All Rights Reserved. Design & Developed By Root Soft Bangladesh