‘বিরোধী দলকে মামলায় সয়লাব করে দিয়েছে সরকার’

বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, বিরোধী দলকে হয়রানী করার জন্য হামলা-গ্রেফতার ও মামলা দিয়ে সয়লাব করে দিয়েছে আওয়ামী সরকার। এর একমাত্র উদ্দেশ্য হচ্ছে জনগণের পক্ষে যেন কেও কথা না বলে। এই সমস্ত মামলার লক্ষ্যই হচ্ছে বিরোধী দলকে একরকম বন্দি করে রাখা।

মঙ্গলবার (১৬ মার্চ) বিএনপির সহ-দফতর সম্পাদক মো. তাইফুল ইসলাম টিপুর পাঠানো এক সংবাদ বিবৃতিতে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান- শামসুজ্জামান দুদু, চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা কাউন্সিলের সদস্য- মিজানুর রহমান মিনু, সাংগঠনিক সম্পাদক (রাজশাহী বিভাগ) অ্যাডভোকেট রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলু, বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক ও রাজশাহী মহানগর বিএনপির সভাপতি- মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুলসহ ত্রাণ ও পুনর্বাসন বিষয়ক সম্পাদক ও রাজশাহী মহানগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট শফিকুল হক মিলনের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহী মামলা দায়েরের ঘটনায় তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানান মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

বিবৃতিতে বিএনপি মহাসচিব বলেন, শুধু মিথ্যা মামলাই দায়ের করছে না গ্রেফতার করে রিমান্ডের নামে যে অমানুষিক নির্যাতন করছে তা সকল রেকর্ডকে অতিক্রম করেছে, তার জলজ্যান্ত প্রমাণ হচ্ছে লেখক সাংবাদিক মোস্তাক এর সরকারি হেফাজতে মৃত্যু। সন্ত্রাস আর ত্রাসের ওপর নির্ভর করেই সরকার টিকে আছে। এছাড়া তাদের আর অন্য কোনো ভিত্তি নেই।

তিনি বলেন, জনগণ অনেক আগেই তাদের কাছ থেকে মুখ ফিরিয়ে নিয়েছে। আইনশৃঙ্খলা বাহিনী আওয়ামী সরকারের ব্যক্তিগত লাঠিয়াল বাহিনীতে পরিণত হওয়ার কারণে বিরোধী দল নিপীড়নের শিকার হচ্ছে না বরং সারাজাতি যেকোনো মুহূর্তে উৎপীড়ন ধেয়ে আসতে পারে। এই আশঙ্কার মধ্যে দিনাতিপাত করছে। বাংলাদেশের যেকোনো  শহরেই বিএনপির সমাবেশ অনুষ্ঠিত হলেই মনে হয় যেন কারফিউ বিরাজ করছে এবং আইনশৃঙ্খলা বাহিনী পথে পথে বাধা সৃষ্টি করে। এতো প্রতিবন্ধকতা সত্ত্বেও লক্ষ-লক্ষ জনতা বিএনপির সভা-সমাবেশে উপস্থিতি হয়। আর সেজন্য সরকারের মনে দাউ দাউ করে প্রতিহিংসার আগুন জ্বলে। এই কারণেই বিএনপির নেতৃবৃন্দের নামে বানোয়াট রাষ্ট্রদ্রোহী মামলা দিয়ে তাদেরকে ধ্বংস করার নীল নকশা প্রণয়ন করা হয়েছে।

ফখরুল বলেন, নেতৃবৃন্দের বিরুদ্ধে এই মামলা মত প্রকাশের স্বাধীনতার উপর কুঠারাঘাত। যেহেতু বাকশালী শাসনের পুনরুত্থান ঘটানো হয়েছে সুতরাং মানুষের মৌলিক অধিকার সুরক্ষার শেষ চিহ্নটুকুও তারা রাখবে না। উল্লেখিত বিএনপির গুরুত্বপূর্ণ নেতৃবৃন্দের নামে এই মামলা দিয়ে এক গভীর চক্রান্তের দিকে সরকার এগুচ্ছে বলে জনগণ মনে করে।

তিনি বলেন, বর্তমান শাসকগোষ্ঠী বাংলাদেশকে এক ব্যক্তির জমিদারীতে পরিণত করতে চাচ্ছে। কিন্তু বাংলাদেশের গণতন্ত্রকামী আপামর জনতা তাদের এই দু:স্বপ্নকে বাস্তবায়ন করতে দেবে না। অতীতের ন্যায় সংগ্রামের মাধ্যমে সংগ্রামী জনতা তাদের মৌলিক অধিকার ফিরিয়ে আনবে এবং দেশকে আওয়ামী দু:শাসন মুক্ত করবে। আমি অবিলম্বে উপরোক্ত নেতৃবৃন্দের বিরুদ্ধে দায়েরকৃত বানোয়াট ও অসৎ উদ্দেশ্যপ্রণোদিত মামলা প্রত্যাহারের জোর দাবি করছি।

মন্তব্য করুন

Epaper

সাপ্তাহিক সাম্প্রতিক দেশকাল ই-পেপার পড়তে ক্লিক করুন

Logo

ঠিকানা: ১০/২২ ইকবাল রোড, ব্লক এ, মোহাম্মদপুর, ঢাকা-১২০৭

© 2021 Shampratik Deshkal All Rights Reserved. Design & Developed By Root Soft Bangladesh