প্রধানমন্ত্রীকে কটুক্তি: তেরখাদা আওয়ামী লীগ সভাপতি বহিষ্কার

তেরখাদা উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সদর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়াম্যান এফএম ওহিদুজ্জামান।

তেরখাদা উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সদর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়াম্যান এফএম ওহিদুজ্জামান।

দলীয় সভানেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে হেয় করে বক্তব্য প্রদান করায় খুলনার তেরখাদা উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সদর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়াম্যান এফএম ওহিদুজ্জামানকে দল থেকে সাময়িক বহিষ্কার করা হয়েছে। একই সঙ্গে তার বক্তব্য শুনে খুলনা-৪ (রূপসা-দিঘলিয়া-তেরখাদা) আসনের সংসদ সদস্য আবদুস সালাম মুর্শেদী নীরব থাকায় তার (এমপি) বিষয়ে পদক্ষেপ গ্রহণের জন্য কেন্দ্রে সুপারিশ করা হয়েছে।

সোমবার (২৬ জুলাই) দলীয় কার্যালয়ে খুলনা জেলা আওয়ামী লীগের অনুষ্ঠিত কার্যনির্বাহী কমিটির সভায় এসব সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

জেলা আওয়ামী লীগের দফতর সম্পাদক এমএ রিয়াজ কচি এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

অনুষ্ঠিত সভায় সভাপতিত্ব করেন জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা শেখ হারুনুর রশীদ। সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট সুজিত অধিকারীর সঞ্চালনায় সভায় বক্তৃতা করেন যুগ্ম-সম্পাদক সরফুদ্দিন বিশ্বাস বাচ্চু, কামরুজ্জামান জামালসহ সিনিয়র নেতৃবৃন্দ।

দলীয় সূত্রে জানা গেছে, গত ১৯ জুলাই তেরখাদা সদর ইউনিয়ন পরিষদ চত্বরে দরিদ্রদের মধ্যে চাল বিতরণ অনুষ্ঠানে বক্তৃতা করেন ইউপি চেয়ারম্যান ও আওয়ামী লীগ নেতা ওহিদুজ্জামান। দলের নেতাকর্মীরা চাল বিতরণ অনুষ্ঠানের ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে দিলে তা ভাইরাল হয়। এ নিয়ে দলের মধ্যে বিব্রতকর পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়।

ওই ভিডিওতে দেখা যায়, ওহিদুজ্জামান বলছেন, সংসদ সদস্য আবদুস সালাম মুর্শেদী শুধু রূপসা-তেরখাদা-দিঘলিয়া নয়, তিনি বাংলাদেশের সম্পদ। তিনি বাংলাদেশ নিয়ে কাজ করেন। আমাদের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যখন বহির্বিশ্বে যান তখন কিন্তু সংসদ সদস্য আবদুস সালাম মুর্শেদী ডোনেশন করেন, টাকা দেন। খুলনা জেলায় অনেক সংসদ সদস্য আমাদের আবদুস সালাম মুর্শেদীর টাকায় হইছে। ওই সময় সালাম মুর্শেদী মোবাইল ফোনের মাধ্যমে সরাসরি লাইভে সংযুক্ত ছিলেন। 

জেলা আওয়ামী লীগের দফতর সম্পাদক এমএ রিয়াজ কচি জানান, সোমবারের সভায় বিষয়টি নিয়ে ব্যাপক আলোচনার পর ওহিদুজ্জামানকে সাময়িক বহিষ্কারের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। তাকে ১০ দিনের মধ্যে কারণ দর্শানোর নোটিশের জবাব দিতে হবে। এছাড়া উপজেলা আওয়ামী লীগের ১নং সহ-সভাপতি এফএফ নওয়াব আলী টিপুকে ভারপ্রাপ্ত সভাপতি করা হয়েছে।

তিনি জানান, সেদিন ওহিদুজ্জামানের বক্তব্যের পর সংসদ সদস্য আবদুস সালাম মুর্শেদী মোবাইল ফোনে বক্তব্য রাখেন। কিন্তু তিনি ওহিদুজ্জামানের কথার কোনো সংশোধনী দেননি। সে কারণে তার ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেয়ার জন্য কেন্দ্রীয় কমিটির কাছে সুপারিশ পাঠানোর জন্য সভায় সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। আগামী সেপ্টেম্বরের প্রথম সপ্তাহে বর্ধিত সভা ও কার্যনির্বাহী কমিটির সভা করার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

এ ব্যাপারে খুলনা জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট সুজিৎ কুমার অধিকারী বলেন, দলীয় সভানেত্রী ও প্রধানমন্ত্রীকে হেয় করে বক্তব্য প্রদান করার অভিযোগে তেরখাদা উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এফএম ওহিদুজ্জামানকে দল থেকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। এছাড়া স্থানীয় সংসদ সদস্য সালাম মুর্শেদী কোনো প্রতিবাদ না করায় তার ব্যাপারে সিদ্ধান্ত গ্রহণের জন্য প্রধানমন্ত্রীসহ দলের ঊর্ধ্বতন নেতৃবৃন্দকে জানানো হয়েছে।

অপরদিকে সংসদ সদস্য আব্দুস সালাম মুর্শেদী এ বিষয় এক বিবৃতিতে জানান, তেরখাদা উপজেলার সদর ইউনিয়নের গত ১৯ জুলাই সংগঠিত ঘটনার প্রেক্ষিতে আজ (২৬ জুলাই) খুলনা জেলা আওয়ামী লীগের গৃহীত সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানাচ্ছি। গত ১৯ জুলাই তেরখাদা উপজেলার সদর ইউনিয়নে খাদ্য সহায়তা প্রদান অনুষ্ঠানটি ইউপি চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি এফএম ওহিদুজ্জামানের সার্বিক ব্যবস্থাপনায় অনুষ্ঠিত হয়। উক্ত অনুষ্ঠানে আগে বা পরে কী কথা হয়েছে; তা সম্পর্কে আমি মোটেও অবগত নই। মাত্র তিন মিনিটের জন্য আমি ঢাকা থেকে টেলিকনফারেন্সের মাধ্যমে যুক্ত হই। অনুষ্ঠানে উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি এফএম ওহিদুজ্জামানের দেয়া বক্তব্য সম্পূর্ণ তার ব্যক্তিগত।

উক্ত বক্তব্যের সাথে আমার কোনো সম্পৃক্ততা নেই। এফএম ওহিদুজ্জামানের এই বিভ্রান্তিমূলক কল্পনাপ্রসূত বক্তব্যের তীব্র নিন্দা জানাই। একই সাথে এ বিষয়ে খুলনা জেলা আওয়ামী লীগের গৃহীত সিদ্ধান্তকে সাধুবাদ জানাচ্ছি।

মন্তব্য করুন

Epaper

সাপ্তাহিক সাম্প্রতিক দেশকাল ই-পেপার পড়তে ক্লিক করুন

Logo

ঠিকানা: ১০/২২ ইকবাল রোড, ব্লক এ, মোহাম্মদপুর, ঢাকা-১২০৭

© 2021 Shampratik Deshkal All Rights Reserved. Design & Developed By Root Soft Bangladesh

// //