খালেদা জিয়াকে বিদেশে পাঠানোর দাবি ২২ বিশিষ্ট নাগরিকের

‘খালেদা জিয়ার দ্রুত বিদেশে চিকিৎসা নিতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি’ শীর্ষক বিৃবতি দিয়েছেন দেশের ২২ জন বিশিষ্ট নাগরিক।

বুধবার (১ ডিসেম্বর) রাতে বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টির পলিটব্যুরোর সদস্য বহ্নিশিখা জামালী এ বিবৃতির কথা জানান।

বিবৃতিতে বলা হয়, ‘খালেদা জিয়া দীর্ঘদিন ধরে গুরুতর অসুস্থ হয়ে একটি বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন। তিনি বাংলাদেশের একটি বড় দল বিএনপির চেয়ারপারসন এবং তিন বার প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। শুধু তাই নয়, খালেদা জিয়া গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়ায় নির্বাচিত বাংলাদেশের প্রথম নারী প্রধানমন্ত্রী।’

বিবৃতিতে যাদের নাম উল্লেখ করা হয়েছে, তারা হলেন ডা. নায়লা জামান খান, শিরীন হক, ফরিদা আখতার, শারমিন মোরশেদ, সুলতানা আখতার রুবী, দিলশান পারুল, অধ্যাপক দিলারা চৌধুরী, সায়েদা গুলরুখ, সাইদা আখতার, সীমা দাস সীমু, ময়মুনা আখতার, সামিয়া আফরিন, বহ্নিশিখা জামালী, সৈয়দা রিজওয়ানা হাসান, মাহা মীর্জা, নাজমুন নাহার, মীনা মাশরাফী, সামসুন নাহার, রেহনুমা আহমেদ, সেলিনা রশীদ, আঞ্জুমানারা শিউলি ও রুবিনা রহমান।  

এতে উল্লেখ করা হয়, ‘‘বর্তমানে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হচ্ছে—খালেদা জিয়া দীর্ঘদিন ধরে কারাগারে বন্দি থাকা অবস্থায় বেশ কয়েক ধরনের শারীরিক সমস্যায় ভুগছেন, যার সর্বাঙ্গীন  চিকিৎসা এই দেশে সম্ভব নয় বলে বিভিন্ন সূত্র থেকে জানা যায়। সরকারের হেফাজতে থাকা অবস্থায় চিকিৎসা থেকে বঞ্চিত করা আন্তর্জাতিক মানবাধিকার অনুযায়ী ‘অমানবিক ও নিষ্ঠুর  নির্যাতন’ হিসেবে গণ্য হয়। নির্যাতন থেকে মুক্তির অধিকার ‘ব্যক্তির অন্তর্গত মর্যাদা’ থেকে উদ্ভুত বলে জাতিসংঘের নির্যাতনবিরোধী আন্তর্জাতিক আইনে স্বীকৃত।’’

বিবৃতিতে বলা হয়, ‘খালেদা জিয়ার বয়স এখন ৭৭ বছর। মেডিক্যাল বোর্ডের মতে, সর্বশেষ শারীরিক জটিলতা হচ্ছে—তিনি লিভার সিরোসিসে ভুগছেন এবং এ পর্যন্ত তিন দফায় তার রক্তক্ষরণ হয়েছে। তৃতীয় বার রক্তক্ষরণ অনেক বেশি ছিল। তার লিভারের কার্যক্ষমতা নষ্ট হয়ে গেছে। ভবিষ্যতে খালেদা জিয়ার রক্তক্ষরণ হওয়ার আশঙ্কা প্রায় ৭০ শতাংশ। চিকিৎসকদের মতে, খালেদা জিয়ার লিভারে পরিপাকীয় চাপ কমাতে বাইপাস প্রক্রিয়া সঞ্চালন নালি তৈরি করতে হবে। এটি টিপস পদ্ধতিতে করা হয়,যার জন্য প্রয়োজনীয় প্রযুক্তি এবং দক্ষ ও অভিজ্ঞ জনবল বাংলাদেশে নেই। বিশ্বের মাত্র কয়েকটি দেশে এই বিশেষায়িত চিকিৎসা হিসেবে দেওয়া হয়। তার শারীরিক অবস্থা অপেক্ষাকৃত স্থিতিশীল থাকা অবস্থায় তাকে বিদেশে চিকিৎসার জন্য প্রেরণ করাই সর্বাপেক্ষা কাম্য।’

তারা বলেন, ‘খালেদা জিয়ার সুচিকিৎসা পাওয়ার ক্ষেত্রে প্রয়োজনে বিদেশে হলেও, আন্তর্জাতিক মানবাধিকার নীতি ও বিধান অনুযায়ী কোনো রাষ্ট্রেরই বাধা দেওয়া কিংবা প্রতিবন্ধকতা তৈরি অনুচিতও অগ্রহণযোগ্য।’

বিবৃতিতে ২২ নাগরিক বলেন, ‘সময় খুব বেশি নেই, তাই দ্রুত সিদ্ধান্ত নিয়ে বিশেষজ্ঞ মত অনুযায়ী, প্রযুক্তিগত এবং ব্যবস্থাপনার দিক থেকে যে দেশে চিকিৎসা দেওয়া সম্ভব, সেখানেই খালেদা জিয়াকে অবিলম্বে পাঠানো হোক। দ্রুত বিদেশে চিকিৎসা নেওয়ার জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য আমরা দাবি জানাচ্ছি।’ 

মন্তব্য করুন

Epaper

সাপ্তাহিক সাম্প্রতিক দেশকাল ই-পেপার পড়তে ক্লিক করুন

Logo

ঠিকানা: ১০/২২ ইকবাল রোড, ব্লক এ, মোহাম্মদপুর, ঢাকা-১২০৭

© 2022 Shampratik Deshkal All Rights Reserved. Design & Developed By Root Soft Bangladesh

// //