লকডাউনে হতাশা নয়

তৃতীয় দফা লকডাউনকে ঘিরে সবার মধ্যে আতংক ও হতাশা বিরাজ করছে। দীর্ঘদিন ধরে করোনাভাইরাসের সংক্রমণের কারণে সামাজিক বিচ্ছিন্নতা তৈরি হয়েছে। যা মানুষের মধ্যে নানা ধরনের নেতিবাচক প্রভাব ফেলছে। 

সামাজিক বিচ্ছিন্নতা ও একাকীত্বের কারণে শরীরে নানা ধরনের রোগব্যাধি বাসা বাঁধতে শুরু করে। যেমন- উচ্চ রক্তচাপ, হতাশা, উদ্বেগ, মস্তিষ্কের রোগ এমনকি মৃত্যু পর্যন্ত হতে পারে। 

তাই এই সময়ে নিজেকে ও পরিবারের সদস্যদের একটু পরিকল্পনার মধ্যে নিয়ে আসতে পারলে এ ধরনের সমস্যাগুলো অনেকটাই এড়িয়ে যাওয়া যায়।

গুরুত্বপূর্ণ যোগাযোগগুলো রাখুন

সুস্থ ও ভালোভাবে জীবনযাপনের জন্য কারা আপনার জীবনে সবচেয়ে বেশি প্রয়োজন, তা ঠিক করুন। এদের মধ্যে যেমন আত্মীয় হতে পারে, হতে পারে বন্ধু, এমনকি প্রতিবেশীও। আপনার পারিবারিক চিকিৎসক অবশ্যই এই তালিকার প্রথমদিকে থাকবে। তবে মনে রাখবেন এ ধরনের পরিস্থিতিতে তারাও অনেক বেশি ব্যস্ত থাকবেন। আবার করোনার ঝুঁকি এড়াতে তারাও বাসায় অবস্থান করতে পারেন। তাই এসব গুরুত্বপূর্ণ যোগাযোগগুলো ফোনে সেরে ফেলার চেষ্টা করুন। প্রয়োজন ছাড়া তাদের সঙ্গে যোগাযোগ না করাই ভালো।

যোগাযোগের তথ্য

আপনার আত্মীয়, বন্ধু, সহকর্মীসহ গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিদের সঙ্গে যোগাযোগ করার সব ধরনের তথ্য যেমন- ফোন নম্বর, যোগাযোগের ঠিকানা, মেইল ইত্যাদি সংগ্রহে রাখুন। এটি আপনাকে এসব মানুষ সম্পর্কে খোঁজ রাখতে ও যেকোনো প্রয়োজনে তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করতে সাহায্য করবে। ফোন, ই-মেইল এমনকি পুরনো দিনের মতো হাতে চিঠি লিখেও সবার খোঁজখবর নিতে পারেন। তাদের সঙ্গে কথা বলার জন্য একটি নির্দিষ্ট সময় ঠিক করে নিতে পারেন।

প্রয়োজনীয় যোগাযোগ রাখতে প্রস্তুতি 

যদি শুধু ফোনে সবার সঙ্গে যোগাযোগ রাখতে চান, তাহলে ফোনটি সচল আছে কি-না, তা দেখে নিন। আবার যদি স্যোশাল মিডিয়ার মাধ্যমে যোগাযোগ রাখতে চান, তাহলে অবশ্যই বাসার ইন্টারনেট কানেকশন ও সে অনুযায়ী ডিভাইস সচল রাখুন। আপনার কাছে কম্পিউটার বা ল্যাপটপ থাকলে অনলাইন গ্রুপে যুক্ত থেকে আপনার পছন্দের যে কোনো কিছু প্রিয়জনদের সঙ্গে শেয়ার করতে পারেন।

সৃজনশীল কাজ করুন

ঘরে থাকার এই সময়টিতে নানা সৃজনশীল কাজ করতে পারেন। হাতের কাজ, নানান ধরনের ক্র্যাফট, সেলাই কিংবা শখের যে কোনো কিছু হতে পারে। আমরা সবাই জানি, এ ধরনের সৃজনশীল কাজগুলো একাকীত্ব দূর করতে খুব ভালোভাবে সাহায্য করে।

কাছাকাছি স্বাস্থ্যসেবা সম্পর্কে জানুন

আপনার এলাকা বা কাছাকাছি এলাকায় যারা স্বাস্থ্যসেবা দিচ্ছেন তাদের সম্পর্কে ভালোভাবে জানুন। কীভাবে তাদের সেবা পাওয়া যাবে, করোনা টেস্ট করতে হলে কি করতে হবে, কোন কোন স্থাস্থ্যসেবা আপনি যে কোনো সময় পেতে পারেন এসব বিষয়ে ভালোভাবে জেনে নিন।

খাবার নিয়ে সচেতন হোন

এই সময়ে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হলো স্বাস্থ্যসম্মত খাবার খাওয়া। পরিবারের সবার সুষম পুষ্টি নিশ্চিত হচ্ছে কি-না, সে বিষয়ে খেয়াল রাখুন। প্রতিদিন পর্যাপ্ত পরিমাণে শাক-সবজি ও ফলমূল খাওয়ার অভ্যাস করুন।


মন্তব্য করুন

Epaper

সাপ্তাহিক সাম্প্রতিক দেশকাল ই-পেপার পড়তে ক্লিক করুন

Logo

ঠিকানা: ১০/২২ ইকবাল রোড, ব্লক এ, মোহাম্মদপুর, ঢাকা-১২০৭

© 2021 Shampratik Deshkal All Rights Reserved. Design & Developed By Root Soft Bangladesh