ICT Division

৩২ হাজারের বেশি মণ্ডপে সাজছে দেশ

মহালয়ার মধ্য দিয়ে আগামীকাল রবিবার (২৫ সেপ্টেম্বর) শুরু হবে দুর্গাপূজার আনুষ্ঠানিকতা। আর আগামী ১ অক্টোবর থেকে শুরু হয়ে ৫ অক্টোবর প্রতিমা বিসর্জনের মধ্য দিয়ে শেষ হবে পূজা। বাঙালি হিন্দুদের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় এই উৎসব উদযাপনে এবার সারাদেশে ৩২ হাজার ১৬৮টি মণ্ডপ স্থাপন করা হবে।

আজ শনিবার (২৪ সেপ্টেম্বর) সকালে ঢাকেশ্বরী জাতীয় মন্দির মিলনায়তনে সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময় সভায় এ তথ্য জানিয়েছে বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদ।

পরিষদের সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক চন্দ্রনাথ পোদ্দার জানান, গত বছর সারাদেশে দুর্গাপূজার সংখ্যা ছিল ৩২ হাজার ১১৮টি। এবার এ সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৩২ হাজার ১৬৮টিতে। ঢাকা মহানগরে পূজার সংখ্যা ২৪১টি, যা গত বছরের থেকে ছয়টি বেশি।

পরিষদের সভাপতি জে এল ভৌমিক বলেন, গত বছরের  ঘটনার প্রেক্ষাপটে এবছর সরকার চাচ্ছে, কোনো অবস্থাতেই যেন কোনো অঘটন না ঘটে। আইনপ্রয়োগকারী সংস্থা গত বছরের তুলনায় এ বছর অনেক বেশি সক্রিয়। 

তিনি বলেন, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেছেন, দুই লাখের বেশি আনসার সদস্য লাগবে। এর জন্য বরাদ্দও সরকারকে দিতে হয়। আইন প্রয়োগকারী সদস্যের সংখ্যা বাড়ানো কঠিন হবে এবং এভাবে রক্ষা করা যাবে না। আমরা প্রতিটি মন্দিরে স্বেচ্ছাসেবক নিয়োগ করেছি অন্যান্য যেকোনো সময়ের চেয়ে বেশি। তবে আমরা মনে করি, আমাদের ৩২ হাজারের ১৬৮টি মন্দিরের সুরক্ষা দেওয়া খুব কঠিন। তাই আমরা এ বছর প্রত্যেক মন্দিরে স্বেচ্ছাসেবক নিয়োগ করছি, যারা রাতেও পাহারা দেবে। 

গত বছর কুমিল্লায় একটি মণ্ডপে প্রতিমার ওপর কোরআন রাখার অভিযোগে বিভিন্ন মন্দির ও পূজামণ্ডপে হামলা, ভাঙচুর, অগ্নিসংযোগ হয়। তার জেরে আরো কয়েকটি জেলায়ও হামলার ঘটনা ঘটে। জে এল ভৌমিক আগামী নির্বাচনের আগেই ধর্মীয় সংখ্যালঘু সুরক্ষায় আইন প্রণয়ন করতে সরকারের প্রতি আহ্বান জানান।

তিনি বলেন, বিচারহীনতার সংস্কৃতির কারণেই বারবার ধর্মীয় সংখ্যালঘুদের উপর হামলা হচ্ছে। ২০১৮ সালের নির্বাচনে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের ইশতেহারে সংখ্যালঘু সুরক্ষা আইনের কথা বলা হয়েছে। আগামী নির্বাচনের আগেই এটা করতে হবে।

হিন্দু ধর্মীয় নেতারা জানান, করোনাভাইরাস মহামারির কারণে গত দুই বছর সীমিত পরিসরে দুর্গাপূজা অনুষ্ঠিত হয়েছে। তবে করোনার লাগাম ইতোমধ্যে টেনে ধরা গেছে। তাই এবার উৎসবের রঙে ফিরছে দুর্গাপূজা। 

পরিষদের সাধারণ সম্পাদক চন্দ্রনাথ পোদ্দার বলেন, আমরা এমন একটা পরিবেশ নিশ্চিত করতে চাই, যা রাষ্ট্রের দায়িত্ব। পূজা, ঈদ, বড়দিন, বুদ্ধপূর্ণিমা—এসব কেন পুলিশের সুরক্ষায় হবে? তার মানে রাষ্ট্রের দুর্বলতা ও ব্যর্থতা আছে।

গুজব রটলে ৯৯৯ নম্বরে ফোন দেওয়া, মণ্ডপে সিসিটিভির ব্যবস্থা করা, ষষ্ঠী থেকে দশমী পর্যন্ত ২৪ ঘণ্টা স্বেচ্ছাসেবকের ব্যবস্থা করা— দুর্গাপূজা সুন্দরভাবে সম্পন্ন করতে এমন ২১ দফা নির্দেশনা জারি করেছে পূজা উদযাপন পরিষদ।

সাম্প্রতিক দেশকাল ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন

Ad

মন্তব্য করুন

Epaper

সাপ্তাহিক সাম্প্রতিক দেশকাল ই-পেপার পড়তে ক্লিক করুন

Logo

ঠিকানা: ১০/২২ ইকবাল রোড, ব্লক এ, মোহাম্মদপুর, ঢাকা-১২০৭

© 2022 Shampratik Deshkal All Rights Reserved. Design & Developed By Root Soft Bangladesh

// //