বিসমিল্লাহির রহমানির রহিম-এর ফজিলত

মুমিনের কাজ শুরু হয় মহান আল্লাহর নামে। বিসমিল্লাহির রহমানির রহিম পবিত্র কোরআনের একটি বরকতময় বাক্য। এটি কোরআনের স্বতন্ত্র আয়াত। সুরা তাওবা ছাড়া পবিত্র কোরআনের সব সুরার শুরুতে আছে। প্রতিটি ভালো কাজের শুরুতে এ বাক্যটি উচ্চারণ করার নির্দেশ দেয়া হয়েছে। এটি এমন ফজিলতপূর্ণ আয়াত, যা পাঠ করার মাধ্যমে ওই কাজে পূর্ণতা আসে।

নবীজি সল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেন, ‘প্রত্যেক এমন গুরুত্বপূর্ণ কাজ, যার শুরুতে বিসমিল্লাহ পড়া হয়নি তা অসম্পূর্ণ থেকে যায়।’ (মুসনাদে আহমাদ: ১৪/৩২৯)

মহান আল্লাহ প্রতিটি কাজ ‘বিসমিল্লাহ’ দিয়ে শুরু করার নির্দেশ দিয়েছেন। এটি পাঠে বান্দার জাগতিক কাজও মহান আল্লাহর কাছে ইবাদত হিসেবে গণ্য হয়।

হজরত আবু মুলাইহ থেকে বর্ণিত আছে, তিনি একজন সাহাবি থেকে বর্ণনা করেন। তিনি বলেন, আমি একবার নবীজি সল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের সঙ্গে তার আরোহীর পেছনে বসা ছিলাম। 

এমন সময় আরোহী পা ফসকে পড়ে গেল। তখন আমি বললাম, শয়তান ধ্বংস হোক। নবীজি সল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেন, ‘শয়তান ধ্বংস হোক এরূপ বলো না, কেননা এতে সে নিজেকে খুব বড় মনে করে এবং বলে আমার নিজ শক্তি দ্বারা এ কাজ করেছি; বরং এরূপ মুহূর্তে বলবে ‘বিসমিল্লাহ’। এতে সে অতি ক্ষুদ্র হয়ে যায়, এমনকি মাছিসদৃশ হয়ে যায়।’ (মুসনাদে আহমাদ: ১৯৭৮২)

 যে কাজে বিসমিল্লাহ বলা হয় না সে কাজে শয়তান শরিক থাকে। তাই তো নবীজি সল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম খাওয়াদাওয়াসহ যেকোনো কাজের শুরুতে বিসমিল্লাহ পড়তে বলেছেন। নবীজি সল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেন, ‘যে খাবারে বিসমিল্লাহ পড়া হয় না, সে খাবারে শয়তানের অংশ থাকে। সেই খাবার মানুষের সঙ্গে শয়তানও খায়।’ (মুসলিম: ৫৩৭৬)

সাম্প্রতিক দেশকাল ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন

মন্তব্য করুন

Epaper

সাপ্তাহিক সাম্প্রতিক দেশকাল ই-পেপার পড়তে ক্লিক করুন

Logo

ঠিকানা: ১০/২২ ইকবাল রোড, ব্লক এ, মোহাম্মদপুর, ঢাকা-১২০৭

© 2024 Shampratik Deshkal All Rights Reserved. Design & Developed By Root Soft Bangladesh

// //