সিসি ক্যামেরা কেনার আগে যা জানতে হবে

সার্বক্ষণিক পর্যবেক্ষণের জন্য সবচেয়ে কার্যকরী একটি ডিভাইস হলো সিসি ক্যামেরা। যেটি এক সময় বেশ ব্যয়বহুল প্রক্রিয়া মনে করা হলেও বর্তমান সময়ে প্রযুক্তির অগ্রযাত্রায় এটি এখন সর্বস্তরের জনগণের কাছে সাধারণ বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে। ব্যাংক, অফিস-আদালত, দোকান, রাস্তাঘাট, কলকারখানা, এমনকি বাসা-বাড়িতেও এখন সিসি ক্যামেরা ব্যবহার করতে দেখা যায়।

সিসি ক্যামেরার পূর্ণরূপ হচ্ছে ক্লোজ সার্কিট ক্যামেরা। একে সিসি টিভি ক্যামেরাও বলা হয়। এটি মূলত সচল অবস্থায় সবসময় ভিডিও ধারণ করতে থাকে। এতে মেমোরি থাকা সাপেক্ষে ভিডিও ধারনের সঙ্গে সঙ্গে সংরক্ষণও করে রাখতে পারে। সংরক্ষণের মেয়াদ মেমোরির আকার অনুসারে একদিন থেকে এক বছর বা তারও বেশি সময় হতে পারে। সিসি ক্যামেরায় যে ভিডিও ধারণ হয় তা রিয়েল টাইমে টিভি, মনিটর বা অন্য যে কোনো ডিসপ্লেতে দেখা যায়।

বর্তমানে বাজারে ইন্টারনেট সুবিধাসহ ওয়াইফাই ক্যামেরা পাওয়া যায়। এর সাহায্যে বিশ্বের যে কোনো স্থানে বসে মোবাইল ফোনের মাধ্যমে সিসি ক্যামেরার ভিডিও দেখা যায়। বাসা বা অফিসের চারদিকে চারটি সিসি ক্যামেরা লাগালে এক স্থানে বসেই চতুর্দিকে পর্যবেক্ষণ করা যাবে।

সিসি ক্যামেরা অনেক ধরনের হয়ে থাকে-

ডোম সিসি ক্যামেরা

এই সিসি ক্যামেরাটি বদ্ধ স্থানে ব্যবহার করার জন্য উপযুক্ত। বাসা, অফিস, রেস্তোরাঁর ভেতরে ব্যবহার করা যাবে এ ধরনের ক্যামেরা। এটির আকৃতি গোলাকার। এ ধরনের ক্যামেরা সাধারণত একটি নির্দিষ্ট পরিমাপে ঘুরতে পারে। ডোম সিসি ক্যামেরার সবচেয়ে বড় বৈশিষ্ট্যটি হলো, এর ক্যামেরা কোন দিকে ঘুরছে তা দেখে সহজে বোঝা যাবে না।

বুলেট সিসি ক্যামেরা

এটি সাধারণত রাস্তায় ব্যবহার করা হয়। এটিতে স্টিলের একটি আবরণ রয়েছে, যা এটিকে করেছে ওয়েদারপ্রুফ। তাই এই সিসি ক্যামেরা বাড়ির বাইরে দরজা বা জানালার দেয়ালে কিংবা ছাদ থেকে নিচের দিকে মুখ করে লাগানো যায়।

ই মাউন্ট সিসি ক্যামেরা

ই মাউন্ট সিসি ক্যামেরার সাহায্যে কোনো স্থানের রিয়েল টাইম ফুটেজ দেখার সময় জুম ইন বা জুম আউট করা যায়। এই ক্যামেরায় বিশেষ ধরনের লেন্স ব্যবহার করা হয়। ৩০/৪০ ফুট দূরবর্তী স্থান পর্যন্ত কাজ করতে পারে এটি।

নাইট ভিশন সিসি ক্যামেরা

ইনফ্রারেড প্রযুক্তি ব্যবহার করা হয়েছে এই ক্যামেরায়। ইনফ্রারেড প্রযুক্তির মাধ্যমে এই সিসি ক্যামেরা অল্প আলোতেও ভালো কোয়ালিটির ভিডিও ধারণে সক্ষম। দিনের আলোতে রঙিন এবং রাতে সাদাকালো ভিডিও ধারণ করতে পারে এই ক্যামেরা। সাধারণত ফ্যাক্টরি, গোডাউন যেখানে দিন ও রাত সবময়ই সিসি ক্যামেরার প্রয়োজন এসব স্থানে এই ক্যামেরা বসানো যেতে পারে।

পিটিজি সিসি ক্যামেরা

প্যান টিল্ট জুমের সংক্ষিপ্ত রূপ হচ্ছে পিটিজি। অর্থাৎ এই ক্যামেরায় একই সঙ্গে তিনটি ফিচার কাজ করবে। যে কোনো স্থানের সম্পূর্ণ কভারেজ দিতে সক্ষম এই ক্যামেরা। ম্যানুয়ালি প্যান (ডানে বামে সড়ানো), টিল্ট (উপর নিচ করা), জুম (জুম ইন এবং জুম আউট করা) করা যাবে এর সাহায্যে।

ওয়্যারলেস সিসি ক্যামেরা

এই ক্যামেরা সেটআপের সাহায্যে দূরবর্তী স্থানে বসে সিসি ক্যামেরার ভিডিও দেখা যাবে। প্রতিষ্ঠান ভেদে আলাদা আলাদা মডেলের ক্যামেরার ক্ষেত্রে আলাদা আলাদা স্মার্টফোন অ্যাপও রয়েছে। এটির ডাটা ট্রান্সফারের জন্য কোনো তারের প্রয়োজন হয় না। তবে ক্যামেরাটি সচল রাখতে পাওয়ার ক্যাবলের সংযোগ দিতে হবে।

মন্তব্য করুন

Epaper

সাপ্তাহিক সাম্প্রতিক দেশকাল ই-পেপার পড়তে ক্লিক করুন

Logo

ঠিকানা: ১০/২২ ইকবাল রোড, ব্লক এ, মোহাম্মদপুর, ঢাকা-১২০৭

© 2021 Shampratik Deshkal All Rights Reserved. Design & Developed By Root Soft Bangladesh

// //