রঙিন ‘কার্টহুইল’ গ্যালাক্সির ছবি তুললো জেমস ওয়েব

যুক্তরাষ্ট্রের মহাকাশ গবেষণা সংস্থা নাসার অত্যাধুনিক ও শক্তিশালী জেমস ওয়েব টেলিস্কোপটি মহাকাশে পাঠানোর পর থেকেই অভূতপূর্ব ও চাঞ্চল্যকর সব ছবি পৃথিবীতে পাঠাতে শুরু করেছে। টেলিস্কোপটি সবশেষ কার্টহুইল গ্যালাক্সির (ছায়াপথ) ছবি পৃথিবীতে পাঠিয়েছে। নাসা ছবিগুলো সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে শেয়ার করার পর সেগুলো মুহূর্তের মধ্যে ভাইরাল হয়ে যায়।

ছবি দেখে ধারণা করা যাচ্ছে, টেলিস্কোপটি ‘কার্টহুইল গ্যালাক্সির’ স্পষ্ট ও রঙিন স্থিরচিত্র ধারণ করতে সফল হয়। মহাবিশ্বের বিশাল শূন্যতা ও সময় অতিক্রম এবং বিপুল পরিমাণ ধুলোরাশি ভেদ করে অভূতপূর্ব স্বচ্ছতার সাথে রঙিন গোলাকার গ্যালাক্সির ছবি তুলতে সক্ষম হয়েছে এটি।

যুক্তরাষ্ট্রের মহাকাশ গবেষণা সংস্থা নাসা ও ইউরোপীয় স্পেস এজেন্সি (ইএসএ) স্থানীয় সময় গত মঙ্গলবার (২ আগস্ট) এসব তথ্য জানিয়েছে।

পৃথিবী থেকে প্রায় ৫০০ মিলিয়ন আলোকবর্ষ দূরে স্কাপ্টর নক্ষত্রপুঞ্জে এর অবস্থান। দুটি ছায়াপথের মধ্যে ব্যতিক্রমী ও নিয়ন্ত্রিত সংঘর্ষের ফলে বিশেষ চাকাকৃতির রঙিন এই গ্যালাক্সির জন্ম হয়।

সংঘর্ষের পর যে ভয়াবহ শক্তি সেখানে তৈরি হয়েছিল এর ফলে গ্যালাক্সিটিতে দুটি রঙিন রিং বা বলয়ের সৃষ্টি হয়। এই দুটি বলয়ের কারণে গ্যালাক্সিটিতে রঙিন আলোর ঢেউয়ের মতো অবয়ব দেখা যায়।

নাসা ও ইএসএ একটি যৌথ বিবৃতিতে জানিয়েছে, একটি পুকুরে পাথর ছুড়ে মারলে যেমন ঢেউ তৈরি হয় তেমনি এই গ্যালাক্সিটিকে ঘিরে রঙিন আলোর ঢেউ খেলা করে।

বিবৃতিতে আরো বলা হয়েছে, একটি ছোট সাদা রিং বা চাকতি গ্যালাক্সির কেন্দ্রের কাছাকাছি অবস্থান করছে। আর বাইরের বলয়টি, তার বাহারি রঙের স্পোকসহ প্রায় ৪৪ কোটি বছর ধরে মহাবিশ্বে প্রসারিত হচ্ছে।

বাইরের বলয়টি প্রসারিত হওয়ার সাথে সাথে সেটি গ্যাসে পরিণত হয়। পরবর্তী সময়ে সেগুলো অনেক সময় স্ফুলিঙ্গের মাধ্যমে নতুন নক্ষত্রে পরিণত হয়।

এর আগে গত ১১ জুলাই প্রথমবারের মতো জেমস ওয়েবে তোলা ছবি প্রকাশ করা হয়।

সাম্প্রতিক দেশকাল ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন

Ad

মন্তব্য করুন

Epaper

সাপ্তাহিক সাম্প্রতিক দেশকাল ই-পেপার পড়তে ক্লিক করুন

Logo

ঠিকানা: ১০/২২ ইকবাল রোড, ব্লক এ, মোহাম্মদপুর, ঢাকা-১২০৭

© 2022 Shampratik Deshkal All Rights Reserved. Design & Developed By Root Soft Bangladesh

// //